বিতরণ ব্যবস্থাপনায় পরিবর্তন আনতে ঢাকার দুই সিটি করপোরেশনকে ১২ লাখ কার্ড তৈরি করার দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। পর্যায়ক্রমে সারা দেশে ডিজিটাল কার্ড দেওয়ার প্রচেষ্টা থাকবে।

প্রথম আলো: টিসিবিতে সয়াবিন তেলের কোনো সংকট আছে কি না? আর আপনারা এখন কোন পণ্যগুলো বিক্রি করবেন?

মো. আরিফুল হাসান: এ মাসে তেল, চিনি ও ডাল বিক্রি করব। পাশাপাশি রোজায় কিছু ছোলা অবিক্রীত থেকে গিয়েছিল। সেগুলোও বিক্রির তালিকায় থাকবে। কেউ নিতে চাইলে নিতে পারবেন। মে মাসের জন্য ৭০ থেকে ৮০ লাখ লিটার সয়াবিন আছে গুদামে। আর জুনের জন্য আরও তিন কোটি লিটার সয়াবিন কেনার প্রক্রিয়া চলমান রয়েছে। অর্থাৎ নিয়মিত কার্যক্রম পরিচালনার জন্য যে পরিমাণে সয়াবিনের দরকার তা মজুত আছে। ঈদের আগে ১১০ টাকা দরে সর্বোচ্চ ২ লিটার সয়াবিন তেল ক্রেতাদের দিয়েছি। এ মাসের দাম এখনো নির্ধারণ করা হয়নি। বিক্রি শুরু করার আগে বৈঠক করে এ ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

প্রথম আলো: টিসিবির কার্যক্রম চালাতে কী ধরনের চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করছেন?

মো. আরিফুল হাসান: মাঠপর্যায়ে কাজ চালাতে আমাদের সামনে চ্যালেঞ্জ হচ্ছে, পণ্যগুলো সুষ্ঠুভাবে জনগণের কাছে পৌঁছানো। কারণ, আমাদের লোকবলের তীব্র সংকট রয়েছে। সবাইকে অতিরিক্ত চাপ নিয়ে কাজ করতে হচ্ছে। আমাদের সক্ষমতার তিন গুণ লোকের কাছে পণ্য পৌঁছাতে হচ্ছে। ঈদের আগে এটা করতে গিয়ে জেলা প্রশাসনসহ অন্যদের সহযোগিতাও নিতে হয়েছে। এ জন্য চলতি মাসে হয়তো এক কোটি লোকের হাতে পণ্য পৌঁছানো সম্ভব হবে না। তবে আমাদের চেষ্টা থাকবে। তা ছাড়া আমাদের গুদামেরও সংকট আছে। ঢাকায় জায়গা ভাড়া নিয়ে কোনোমতে কাজ চালানো গেলেও, আঞ্চলিক কার্যালয়গুলোতে সংকট লেগেই আছে। এসব সক্ষমতা বাড়ানো না গেলে এক কোটি লোকের হাতে পণ্য পৌঁছানো বেশ চ্যালেঞ্জের হবে।

প্রথম আলো: এসব সংকট থেকে উত্তরণ ও বিতরণ ব্যবস্থাপনা নিয়ে কী উদ্যোগ নিচ্ছেন?

মো. আরিফুল হাসান: জনবল সংকটের কথা আমরা মন্ত্রণালয়কে জানিয়েছি। ইতিমধ্যে এই সমস্যা সমাধানে কাজ শুরু হয়েছে। তবে লম্বা প্রক্রিয়া শেষ হতে কিছুটা সময় লাগবে। ময়মনসিংহে আমাদের নতুন একটা গুদাম হয়েছে, এতে সংকট কিছুটা কাটবে। তবে একটি নির্দিষ্ট সময়ে (সাধারণত এক মাস) পণ্যের মজুত করতে প্রায় এক লাখ মেট্রিক টন ধারণক্ষমতার গুদামের প্রয়োজন হয়। সেখানে ভাড়া জায়গাসহ এখন আমাদের গুদামের ধারণক্ষমতা মাত্র ৪০ হাজার মেট্রিক টন। এ ছাড়া বিতরণ ব্যবস্থাপনায় পরিবর্তন আনতে ঢাকার দুই সিটি করপোরেশনকে ১২ লাখ কার্ড তৈরি করার দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। পর্যায়ক্রমে সারা দেশে ডিজিটাল কার্ড দেওয়ার চেষ্টা থাকবে। তাতে তদারকি কার্যক্রমে সুবিধা হবে।

শিল্প থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন