বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

ডিবিএল গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এম এ জব্বার বলেন, ‘ধানমন্ডির সেরা লোকেশনে পুমার আরেকটি বিক্রয়কেন্দ্র খোলার প্রক্রিয়া শুরু করতে পেরে আমরা আনন্দিত। তবে এটাই শেষ নয়, বরং শুরু। আমরা আশাবাদী, আইকনিক ফ্ল্যাগশিপের মাধ্যমে ধানমন্ডির গ্রাহকদের আমরা পুমার সেরা পণ্যগুলোর অভিজ্ঞতা দিতে পারব।’

রুডলফ ড্যাজলার নামের একজন জার্মান ১৯৪৮ সালে পুমা ব্র্যান্ড প্রতিষ্ঠা করেন। বর্তমানে ১২০টির বেশি দেশে তাদের ব্যবসা রয়েছে। তাদের কর্মীর সংখ্যা ১৪ হাজার ৩০০। গত বছর বিশ্বের ৩১ দেশের ১৩৯ সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠান পুমার পণ্য উৎপাদন করেছে। ব্র্যান্ডটির জুতাসহ অন্যান্য পণ্যের প্রায় ৩৫ শতাংশ ভিয়েতনামে ও ২৬ শতাংশ চীনে হয়। পুমার তৃতীয় সর্বোচ্চ (বিশেষ করে পোশাক) ১৪ শতাংশ পণ্য সরবরাহকারী হচ্ছে বাংলাদেশ। ২০১৮ সালে ছিল ১৩ শতাংশ।

default-image

মজার ব্যাপার হচ্ছে, রুডলফ ড্যাজলার ও তাঁর বড় ভাই অ্যাডলফ ড্যাজলার ১৯২০ সালে জার্মানির হ্যারজজেনুরেখে প্রতিষ্ঠা করেন জুতা তৈরির কোম্পানি ‘ড্যাজলার ব্রাদার্স শু ফ্যাক্টরি’। বেশ জনপ্রিয়তা পায় তাঁদের এই কোম্পানি। বিখ্যাত দৌড়বিদ জেসি ওয়েনস ব্যবহার করতেন তাঁদের তৈরি জুতাই। জনপ্রিয় এই মার্কিন ক্রীড়াবিদ বার্লিনে অনুষ্ঠিত ১৯৩৬ সালের গ্রীষ্মকালীন অলিম্পিকে ১০০ মিটার, ২০০ মিটার, লং জাম্প ও ৪০০ মিটার রিলে দৌড়ে স্বর্ণপদক জয় করে আন্তর্জাতিক খ্যাতি লাভ করেন। এমনই রমরমা অবস্থা ছিল ড্যাজলার ব্রাদার্স শু ফ্যাক্টরির।

তবে দুই ভাইয়ের মিল বেশি দিন টেকেনি। বছর বিশেকের মধ্যেই ভাগ হয়ে যায় কোম্পানি। দুই ভাইয়ের মধ্যে দ্বন্দ্বের শুরুটা কিসের জেরে, তা নিয়ে নানা গল্প প্রচলিত আছে। ১৯৪৯ সালের ১৮ আগস্ট থেকে অ্যাডিডাস নামে আত্মপ্রকাশ করে অ্যাডলফের প্রতিষ্ঠান। এর আগের বছরই পুমা কোম্পানি প্রতিষ্ঠা করেন রুডলফ। তখন থেকেই চলছে দুই কোম্পানির মধ্যে চরম প্রতিদ্বন্দ্বিতা। তবে এ লড়াইয়ে সব সময় কিছুটা এগিয়ে অ্যাডিডাস। দুই ভাইয়ের এই দ্বন্দ্ব নিয়ে আলোচনা এখনো হয়। কিছুদিন আগে সিনেমাও হয়েছে।

পুমার আর্থিক প্রতিবেদন অনুযায়ী, করোনার মধ্যে গত বছর পুমা ৫২৩ কোটি ইউরোর পণ্য বিক্রি করেছে। এ আয় তার আগের বছরের চেয়ে ৪ দশমিক ৯ শতাংশ কম। ২০১৯ বছর বিক্রি হয়েছিল ৫৫০ কোটি ইউরোর পণ্য। তার আগের বছর পুমার বিক্রি ছিল ৪৬৪ কোটি ৮৩ লাখ ইউরো।

পুমার মোট বিক্রির মধ্যে অধিকাংশই জুতা। গত বছর ৫২৩ কোটি ইউরোর মধ্যে ২৩৬ কোটি ইউরো জুতা, ১৯৭ কোটি ইউরো কাপড় ও ৮৯ কোটি ইউরোর অন্য সামগ্রী বিক্রি হয়েছে।

শিল্প থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন