বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জের তারাব এলাকার ঢাকাই মসলিন হাউস পরিদর্শনে গিয়ে শনিবার সন্ধ্যায় সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী গোলাম দস্তগীর গাজী। এ সময় উপস্থিত ছিলেন রূপগঞ্জের তারাব পৌরসভার মেয়র হাছিনা গাজী, বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. আবদুল মান্নান প্রমুখ। মন্ত্রণালয়ের পাঠানো সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বিষয়টি জানানো হয়।

গোলাম দস্তগীর গাজী বলেন, ‘দ্রুত সময়ে আমরা বাণিজ্যিক উৎপাদনে যেতে পারব। বিশ্ববাজারে যেতে আর বেশি সময় লাগবে না। আমরা ইতিমধ্যে এই প্রযুক্তি রপ্ত করতে পেরেছি। শাড়ি তৈরি করতে পেরেছি।’ তিনি আরও বলেন, ‘আমাদের মসলিনের মান ধরে রাখতে হবে। জনগণের ক্রয়ক্ষমতার মধ্যে থাকতে হবে। বাংলাদেশে একটি শাড়ি ৫-১০ লাখ টাকা হলে সেটার বিক্রয় কম হবে। আমাদের মূল হচ্ছে জনগণ।’

বস্ত্রমন্ত্রী আরও বলেন, ব্যাপক অনুসন্ধান ও গবেষণার মাধ্যমে মসলিনের কাঁচামাল ফুটি কার্পাস খুঁজে বের করা হয়েছে। চাষাবাদও হয়েছে। তারপর সুতা উৎপাদন ও কারিগরদের দক্ষতার উন্নয়ন করে উন্নতমানের মসলিন উৎপাদন করা সম্ভব হয়েছে। মসলিনের ভৌগোলিক নির্দেশক (জিআই) সনদ ও পেটেন্ট অর্জিত হওয়ায় দেশের ঐতিহ্যবাহী তাঁতশিল্পের টেকসই উন্নয়ন ও সম্প্রসারণের সম্ভাবনা সৃষ্টি হয়েছে। ঐতিহ্যবাহী ঢাকাই মসলিন রপ্তানি করে বিপুল পরিমাণ বৈদেশিক মুদ্রা অর্জিত হবে এবং বহির্বিশ্বে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল হবে বলে মনে করেন তিনি।

শিল্প থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন