আলাদা আলাদা ১৬টি শ্রেণিতে পুরস্কার প্রাপ্ত ব্যক্তিরা হলেন বার্জার পেইন্টস বাংলাদেশের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) রূপালী হক চৌধুরী, ব্রিটিশ–আমেরিকান টোব্যাকো এমডি শেহজাদ মুনিম, মিরপুর সিরামিক ওয়ার্কসের চেয়ারম্যান আসিফ আরিফ তাবানি, ব্র্যাক এন্টারপ্রাইজের ব্যবস্থাপনা পরিচালক তামারা হাসান আবেদ, প্রাণ-আরএফএল গ্রুপের চেয়ারম্যান আহসান খান চৌধুরী, ফুডপান্ডা বাংলাদেশের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সৈয়দা আম্বারিন রেজা, ওয়ালটন হাইটেক ইন্ডাস্ট্রিজের ব্যবস্থাপনা পরিচালক গোলাম মুর্শেদ, নগদের প্রধান ব্যবসায়িক কর্মকর্তা শেখ আমিনুর রহমান, বাংলালিংক ডিজিটাল কমিউনিকেশনসের চিফ করপোরেট কর্মকর্তা তৈমুর রহমান, নেস্‌লে বাংলাদেশের বিক্রয় পরিচালক সৈয়দ ইকবাল মাহমুদ হোসেন, গ্রামীণফোনের ডিজিটাল অ্যান্ড স্ট্র্যাটেজি বিভাগের প্রধান সোলায়মান আলম, গ্রামীণফোনের প্রধান মানবসম্পদ কর্মকর্তা সৈয়দ তানভীর হোসেন, ওয়ালটন হাইটেক ইন্ডাস্ট্রিজের প্রধান বিপণন কর্মকর্তা মোহাম্মদ ফিরোজ আলম, আকিজ বিল্ডিং ম্যাটেরিয়ালসের পরিচালক (পরিচালন) মোহাম্মদ খুরশেদ আলম, বিকাশের প্রধান পণ্য ও প্রযুক্তি কর্মকর্তা মোহাম্মদ আজমল হুদা ও ইউনিলিভার বাংলাদেশের প্রধান আর্থিক কর্মকর্তা জাহিদ মালিতা।

অনুষ্ঠানের শুরুতে বাংলাদেশ ব্র্যান্ড ফোরামের প্রতিষ্ঠাতা ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক শরিফুল ইসলাম বলেন, এই পুরস্কার বাংলাদেশের পরবর্তী নেতৃত্ব সুদৃঢ় করার লক্ষ্য অর্জনে কাজ করবে।

দিনব্যাপী এই অনুষ্ঠানে বিশেষজ্ঞ ও নেতৃস্থানীয় ব্যক্তিরা অংশগ্রহণ করে তাঁদের অভিজ্ঞতা তুলে ধরেন। কথা বলেন নেতৃত্বের বিভিন্ন বিষয় নিয়ে। অনুষ্ঠানে চারটি প্যানেল আলোচনা, চারটি প্রবন্ধ উপস্থাপনের সঙ্গে ছিল একটি ইনসাইড সেশন।
এই আয়োজনের পৃষ্ঠপোষকতায় ছিল ইউনাইটেড গ্রুপ। সহযোগিতায় ছিল টিম গ্রুপ, দ্য ডেইলি স্টার ও মেট্রোপলিটান চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিসহ বেশ কিছু প্রতিষ্ঠান।