কেন্দ্রীয় ব্যাংকের গভর্নর বলি আর অর্থসচিবের কথাই বলি না কেন, বিশ্ব অর্থনীতির বর্তমান অবস্থার পরিপ্রেক্ষিত বিবেচনায় দেশের অর্থনীতির বর্তমান পরিস্থিতির তাল মেলানোর কৌশল তাদের খুব জানা থাকবে এমন নয়। তাঁদের প্রতি সম্মান রেখেই বলছি। তাই প্রায় সব দেশে অর্থনৈতিক পরিস্থিতি মোকাবিলায় উপদেষ্টা কমিটি থাকে। আমাদের দেশে এখনো তা নেই।

বিশ্বব্যাংক-আইএমএফের বার্ষিক সভায় অর্থমন্ত্রী যে গেলেন না, বদলে গভর্নরকে দায়িত্ব দিলেন, এটা কতটা উচিত হলো ভাবার বিষয়। এটা ছোট কোনো বিষয় ছিল না। অর্থমন্ত্রী জানেন, আমলা নেতৃত্ব দিয়ে ভালো কিছু হয় না। আগে কখনোই এমনটা দেখা যায়নি যে অর্থমন্ত্রী এত গুরুত্বপূর্ণ বৈঠকে যোগ দেননি। আমরা জানি না, অর্থনৈতিক নেতৃত্বের এই শূন্যতা কীভাবে, কত দিনে মেটানো সম্ভব হবে?

দেশের অর্থনীতিতে যা চলছে, প্রথমে মুদ্রা বিনিময়ের হারের কথাই যদি বলি, কী দেখতে পাচ্ছি আমরা? ডলারের বাজার অস্থিতিশীল। বাজারে আবার কয়েক ধরনের ডলারের দর রয়েছে, যা গ্রহণযোগ্য নয়। এখন যে ১০৫ টাকা একটা দর আছে, এটাও সরকার করেনি। বাংলাদেশ ব্যাংকও করেনি, করেছে বাজার। খোলাবাজারের সঙ্গে পার্থক্য কমিয়ে আনার ব্যাপারে বাস্তবে সরকারের কোনো কাজ নেই।

আবার বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ নিচের দিকে নামছে। চার মাস পরে তা ২ হাজার ৩০০ কোটি ডলারে নেমে যাওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। অথচ নানাভাবে ডলারের অপচয় হচ্ছে। আর সুদের হারে তো সরকার হাতই দেয়নি। নয়-ছয়ের ব্যাপারটা অন্যতম বাধা। অথচ আমরা ছাড়া প্রায় সব দেশ তাদের সুদের হার বাড়িয়েছে।

আমার পর্যবেক্ষণ হচ্ছে, তিনি (অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল) একজন ‘অ্যাবসেন্ট অর্থমন্ত্রী’। তিনি নিয়মিত অফিসে আসেন না। তবে নিশ্চয়ই বাসায় বসে কাজ করেন। একজন অর্থমন্ত্রীর শুধু বাসায় বসে কাজ করা যথেষ্ট নয়। তিনি একনেক বৈঠকে যান না—এটা অবশ্য পুরোনো খবর। ক্রয় কমিটির বৈঠক চাইলে এখন অনলাইনের পরিবর্তে সরাসরি করতেই পারেন।

কেন করেন না, এটা তিনিই ভালো বুঝবেন। তবে অসুস্থ থাকলে ভিন্ন কথা। অসুস্থ যে কেউই থাকতে পারেন। সে ক্ষেত্রে হয় তিনি নিজে অব্যাহতি নেবেন অথবা সরকার তাঁকে অব্যাহতি দেবে। অর্থমন্ত্রীর জন্য দেশ কেন ভুগবে। অর্থমন্ত্রীর ভালো করেই জানা উচিত যে আর্থিক খাত আমলাতন্ত্র দিয়ে চলবে না। তা–ও যদি বুঝতাম প্রজ্ঞাবান, স্বাধীন চিন্তার অধিকারী ঝানু কোনো আমলা গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্বে আছেন। তা তো নেই। তা হলে? আমরা বিভ্রান্ত, অর্থমন্ত্রী বা তাঁর মন্ত্রণালয়ের নিষ্ক্রিয়তায় কোন দিকে যাচ্ছে দেশের অর্থনীতি।

আহসান এইচ মনসুর, নির্বাহী পরিচালক, পিআরআই