নতুন বছরে চাকরিপ্রার্থীদের জন্য আরেকটি সুখবর। ব্যাংকিং খাতে বড় কয়েকটি নিয়োগ বিজ্ঞপ্তির পর শিক্ষা খাতে আসছে চাকরির বড় নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি। সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সহকারী শিক্ষক পদে নতুন বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের প্রস্তুতি নিচ্ছে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়।

প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সচিব ফরিদ আহাম্মদ গতকাল রোববার বিকেলে প্রথম আলোকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে যেহেতু শূন্য পদ রয়েছে, তাই নতুন আরেকটি নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে।

ফরিদ আহাম্মদ বলেন, ‘আশা করছি চলতি ফেব্রুয়ারি মাসে নতুন বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা সম্ভব হবে। নতুন বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে প্রায় সাত হাজার সহকারী শিক্ষক নিয়োগ দেওয়া হবে।’

গত জানুয়ারি মাসে প্রাথমিকের ইতিহাসে সবচেয়ে বড় নিয়োগ বিজ্ঞপ্তির কার্যক্রম শেষ হয়। সেই নিয়োগ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে তিন ধাপে লিখিত ও মৌখিক পরীক্ষা শেষে সহকারী শিক্ষক পদে ৩৭ হাজার ৫৭৪ জনকে চূড়ান্তভাবে নির্বাচিত করা হয়।

আশা করছি চলতি ফেব্রুয়ারি মাসে নতুন বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা সম্ভব হবে। নতুন বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে প্রায় সাত হাজার সহকারী শিক্ষক নিয়োগ দেওয়া হবে।
ফরিদ আহাম্মদ, প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সচিব

তবে নিয়োগের জন্য নির্বাচিত ৩৭ হাজার ৫৭৪ জন প্রার্থীর মধ্যে বেশ কিছু প্রার্থী শেষ মুহূর্তে সহকারী শিক্ষক পদে যোগ দেননি বলে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে।

প্রাথমিকের সহকারী শিক্ষক পদে অনির্দিষ্টসংখ্যক জনবল নিয়োগের জন্য সর্বশেষ ২০২০ সালের অক্টোবরে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর।

সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে রাজস্ব খাতভুক্ত ‘সহকারী শিক্ষক’–এর শূন্য পদ এবং জাতীয়করণ করা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পিডিইপি-৪–এর আওতায় প্রাক্‌-প্রাথমিক শ্রেণির জন্য রাজস্ব খাতে সৃষ্ট ‘সহকারী শিক্ষক’ পদে জাতীয় বেতন স্কেল ২০১৫–এর ১৩তম গ্রেডে অস্থায়ীভাবে নিয়োগে বিজ্ঞপ্তিটি প্রকাশ করা হয়েছিল।

তিন পার্বত্য জেলা রাঙামাটি, খাগড়াছড়ি ও বান্দরবানের প্রার্থীরা বাদে বাকি জেলার প্রার্থীরা আবেদনের সুযোগ পেয়েছিলেন। আবেদন ফি ছিল ১১০ টাকা। মোট আবেদন করেছিলেন ১৩ লাখ ৯ হাজার ৪৬১ প্রার্থী।