default-image

ধারণা করা হচ্ছিল নতুন আইফোনের দাম তুলনামূলকভাবে কম হবে। তবে আইফোন তৈরিতে যেসব উপাদান ব্যবহার করা হয় তার দাম বেড়ে গেছে। ফলে আইফোন ১১–এর দামের তুলনায় আইফোন ১২-এর দাম বেড়ে যেতে পারে।

গুঞ্জন উঠেছিল আইফোন ১২ মডেলের দাম শুরু হবে ৬৪৯ মার্কিন ডলার থেকে, যা আইফোন ১১–এর তুলনায় ৫০ ডলার কম। অনেকেই কম দামে নতুন আইফোন আসার খবর শুনে খুশি হয়েছিলেন।

সম্প্রতি প্রযুক্তিবিষয়ক কয়েকটি ওয়েবসাইটে বলা হচ্ছে, আইফোন ১২ মডেলের দাম শুরু হতে পারে ৬৯৯ থেকে ৭৪৯ মার্কিন ডলারে।

প্রযুক্তিবিষয়ক ওয়েবসাইট গিজচায়না ওয়েবুতে তথ্য ফাঁসকারী একজনকে উদ্ধৃত করে জানিয়েছে, নতুন আইফোনের দাম বেড়ে যেতে পারে। নতুন মডেলের আইফোনের সঙ্গে অ্যাপল অবশ্য এয়ারপড ও চার্জার দেবে না।

ইতিমধ্যে নতুন মডেলের স্মার্টওয়াচের সঙ্গে এ ট্রেন্ড শুরু করেছে অ্যাপল। অ্যাপলপ্রেমীরা ধারণা করছেন, আইফোনের সঙ্গে আনুষঙ্গিক গ্যাজেট কম দিয়ে দাম কম রাখার চেষ্টা করতে পারে অ্যাপল।

বিজ্ঞাপন

তবে অ্যাপল পণ্য তৈরিতে ব্যবহৃত উপাদানের দাম বেড়ে যাওয়ায় আইফোন ১২ মডেলের দাম ৫০ ডলারের বেশি বেড়ে যেতে পারে। এর মধ্যে রয়েছে ৫জি যন্ত্রাংশ ও ওএলইডি প্যানেলের মতো উপাদান। এ ক্ষেত্রে অ্যাপলের নতুন আইফোনের দাম শুরু হতে পারে ৭৪৯ মার্কিন ডলার থেকে।

অ্যাপল আশা করছে, এ বছরে তারা ৮ কোটি ইউনিট নতুন আইফোন বিক্রি করবে। যদি চাহিদা ঠিক থাকে তবে অ্যাপলকে নতুন আইফোন সরবরাহে হিমশিম খেতে হবে।
অ্যাপল ইতিমধ্যে এ১৪ চিপসেটের সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দিয়েছে, যা আইফোন ১২ তে ব্যবহৃত হবে। এ চিপসেট ব্যবহারের ফলে আইফোন ১১–এর তুলনায় আইফোন ১২ বেশি গতিসম্পন্ন হবে। বাজার বিশ্লেষকেরা ধারণা করছেন, এবার বাজারে ৫জি সুবিধার প্রথম স্মার্টফোন আনতে পারে অ্যাপল।

অ্যাপলের এ বছরের ১৫ সেপ্টেম্বরের অনুষ্ঠান ঘিরে চোখ রেখেছিলেন প্রযুক্তিপ্রেমীরা। আগেভাগেই ‘টাইম ফ্লাইস’ শীর্ষক অনুষ্ঠানের আমন্ত্রণ জানিয়ে রেখেছিল প্রতিষ্ঠানটি। ভার্চ্যুয়াল ওই অনুষ্ঠানে নতুন অ্যাপল ওয়াচ ও আইপ্যাড মডেলের উদ্বোধন করেছে মার্কিন প্রযুক্তিপণ্য নির্মাতা প্রতিষ্ঠানটি। অ্যাপলের নতুন ‘অ্যাপল ওয়াচ ৬’ এসেছে রক্তে অক্সিজেনের মাত্রা বা এসপিওটু পর্যবেক্ষণ করার ফিচার নিয়ে। এতে আরও আছে ইসিজি, হার্টরেটসহ অন্যান্য সেন্সর।

ধারণা করা হচ্ছে, অক্টোবরে নতুন আইফোন আনবে অ্যাপল। ১২ অক্টোবর আসতে পারে আইফোন ১২ মডেলটি।

মন্তব্য পড়ুন 0