default-image

চীনের সাইবার কর্তৃপক্ষ ইন্টারনেট ব্রাউজার সেবাদাতার ওপর ক্ষুব্ধ। এসব ব্রাউজার দেশটির নিয়মনীতি পাশ কাটিয়ে যাচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। তাই চীনের শীর্ষ সাইবার কর্তৃপক্ষ বলেছে, তারা সামাজিক উদ্বেগ থেকে সুরক্ষা দিতে চীনা মোবাইল ইন্টারনেট ব্রাউজারগুলো সংশোধন করতে যাচ্ছে।

ইন্টারনেট ব্রাউজারগুলো থেকে সৃষ্ট অনলাইনে প্রকাশিত তথ্যের বিশৃঙ্খলা রোধে তারা এ পদক্ষেপ নিচ্ছে। বার্তা সংস্থা রয়টার্সের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

চীনের কঠোর ইন্টারনেট সেন্সরশিপ বিধি সাম্প্রতিক বছরগুলোতে অসংখ্যবার প্রয়োগ করা হয়েছে। তবে সাম্প্রতিক সেন্সরশিপের ক্ষেত্রে সাইবারস্পেস অ্যাডমিনিস্ট্রেশন অব চায়না (সিএসি) বলেছে, যেসব প্রতিষ্ঠান মোবাইল ব্রাউজার পরিচালনায় যুক্ত রয়েছে, তাদের ৯ নভেম্বর পর্যন্ত ব্রাউজার পরীক্ষা করে সমস্যা ঠিক করার সময় বেঁধে দেওয়া হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

সংস্থাটির বিবৃতিতে বলা হয়েছে, চীনা ব্রাউজার যেসব সমস্যা সৃষ্টি করছে, তার মধ্যে রয়েছে গুজব ছড়ানো, চাঞ্চল্যকর শিরোনাম ব্যবহার ও সমাজতন্ত্রের মূল মূল্যবোধ লঙ্ঘনকারী বিষয়বস্তু প্রকাশ।

অনেক সময় কিছু মোবাইল ব্রাউজার অশোভনভাবে তৈরি করা হয়, যা নিজস্ব মিডিয়া সৃষ্টির মাধ্যমে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টিকারী বিষয়বস্তু ছড়িয়ে দেয়। সিএসি জানিয়েছে, স্বাধীনভাবে পরিচালিত সামাজিক মিডিয়া অ্যাকাউন্টগুলো থেকে এখন সংবাদ প্রকাশ করা হয়ে থাকে।

সংশোধন করার পরেও যদি কোনো ব্রাউজারে সমস্যা থেকে যায়, তবে আইন অনুযায়ী সেটির বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

চীনে বর্তমানে চালু থাকা আটটি প্রভাবশালী মোবাইল ব্রাউজারের বিরুদ্ধে সংশোধন কর্মসূচি চালানো হচ্ছে। এসব ব্রাউজারের মধ্যে রয়েছে হুয়াওয়ে ব্রাউজার, আলিবাবা গ্রুপের ইউসি ওয়েব ব্রাউজার ও শাওমির ব্রাউজার, অপো, সউগো, টেনসেন্ট, থ্রিসিক্সটি ও কিউকিউ প্ল্যাটফর্মের ব্রাউজার।

ব্রাউজার সংশোধনী প্রসঙ্গে ব্রাউজার নির্মাতারা কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি।

চীনের পক্ষ থেকে সংবাদমাধ্যম নিয়ন্ত্রণ, নজরদারি, ও অগ্রহণযোগ্য কনটেন্ট সরানোর জন্য কর্মসূচি চালু করতে সাম্প্রতিক সময়ে আইন করা হয়েছে।

মন্তব্য পড়ুন 0