default-image

জলবায়ু পরিবর্তন রোধ কারও একার কাজ নয়, সেটা সম্ভবও না। তাই নিজের অংশটুকু অন্তত করতে চান মাইক্রোসফটের সহপ্রতিষ্ঠাতা বিল গেটস।

জলবায়ু পরিবর্তন এড়ানোর সম্ভাব্য উপায় নিয়ে ‘হাউ টু অ্যাভয়েড আ ক্লাইমেট ডিজাস্টার’ নামে বই লিখেছেন সম্প্রতি। আর কার্বন নির্গমন কমাতে এবার জীবনভর মেনে চলা অভ্যাসেও পরিবর্তন আনছেন। বিমান ভ্রমণ কমিয়ে দেওয়ার পাশাপাশি কৃত্রিম মাংস খাওয়ার ব্যাপারে জানিয়েছেন বিল গেটস।

নিজে বৈদ্যুতিক গাড়ি চালাই। বাড়িতে সোলার প্যানেল লাগিয়েছি। আমি সিনথেটিক মাংস খাই (মাঝে মাঝে)। বিমানের জন্য পরিবেশবান্ধব জ্বালানি কিনি।
বিল গেটস, সহপ্রতিষ্ঠাতা, মাইক্রোসফট

গত শুক্রবার রেডিটে আয়োজিত প্রশ্নোত্তর পর্বে এক ব্যবহারকারী গেটসকে জিজ্ঞাস করেন, কার্বন নির্গমনের হার কমাতে তিনি কী করছেন। উত্তরে মাইক্রোসফটের সহপ্রতিষ্ঠাতা লেখেন, ‘ব্যক্তিগতভাবে আমি অনেক কিছু করছি। নিজে বৈদ্যুতিক গাড়ি চালাই। বাড়িতে সোলার প্যানেল লাগিয়েছি। আমি সিনথেটিক মাংস খাই (মাঝে মাঝে)। বিমানের জন্য পরিবেশবান্ধব জ্বালানি কিনি। সরাসরি বাতাস থেকে কার্বন ডাই–অক্সাইড সংগ্রহের জন্য ক্লাইমওয়ার্কসকে অর্থ দিই। কম খরচের বাড়িতে বৈদ্যুতিক হিট পাম্প কেনার জন্য অর্থায়নের ব্যবস্থা করি।’

গত নভেম্বরে বিমান ভ্রমণবিষয়ক অনুমান করে সংবাদের শিরোনাম হয়েছিলেন বিল গেটস। বলেছিলেন, ‘করোনা মহামারির পর ব্যবসায়িক উদ্দেশে বিমান ভ্রমণ অর্ধেকের বেশি কমে যাবে।’ গত শুক্রবার দেখিয়েছেন সেটি কীভাবে হবে। লিখেছেন, ‘আমি আগের চেয়ে বিমান ভ্রমণ অনেক কমিয়ে দেওয়ার পরিকল্পনা করেছি। কারণ, এই মহামারি দেখিয়েছে কীভাবে আমরা কম ভ্রমণে কাজ সারতে পারি।’

মাইক্রোসফট টিমস অ্যাপ তৈরি করেছে, যেটাতে কর্মীরা ভিডিও কলে আলোচনা সারতে পারেন। মাইক্রোসফটের পরিচালনা পর্ষদ থেকে গত বছর অবসর নেন বিল গেটস, তবে এখনো বিনিয়োগকারী। আর মাইক্রোসফটের তৈরি পণ্যগুলো সম্পর্কে নিজের পর্যালোচনা জানান মাঝেমধ্যে।

সূত্র: সিএনবিসি

বিজ্ঞাপন
প্রযুক্তি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন