অস্কারজয়ী সংগীতশিল্পী ও সুরকার এ আর রহমানের মা করিমা বেগম মারা গেছেন। আজ সোমবার বার্ধক্যের কারণে চেন্নাইয়ের একটি হাসপাতালে মারা যান তিনি। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম টুইটারে পোস্ট দিয়ে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন এ আর রহমান নিজেই। তবে সেই পোস্টে কিছুই লেখেননি উপমহাদেশের জনপ্রিয় এই সংগীত তারকা। কেবল পোস্ট করেছেন মায়ের হাসিমুখের একটি ছবি।

default-image

করোনায় আক্রান্ত হয়েছিলেন করিমা বেগম। তবে করোনায় মৃত্যু হয়নি তাঁর। করোনা থেকে সেরেও উঠেছিলেন। মায়ের খুবই কাছের ছিলেন এ আর রহমান। তাঁর সংগীত তারকা হওয়ার পেছনে তাঁর মায়ের অনুপ্রেরণা ছিল। কিছুদিন আগেই এক সাক্ষাৎকারে মাকে নিয়ে এ আর রহমান বলেছিলেন, ‘আমার মা গান শুনতে খুবই ভালোবাসেন। সংগীতকে তিনি খুব সহজে তাঁর হৃদয়ের বড় একটা অংশীদার করেছিলেন। তাঁর চিন্তাধারায় একটা সুফিবাদ আছে। আমার অনেক কিছুই তাঁকে দিয়ে অনুপ্রাণিত।’

default-image

মাত্র ৯ বছর বয়সে মারা যান এ আর রহমানের বাবা আর কে শেখর। তিনিও সংগীত জগতেরই মানুষ। তামিল আর মালয়ালাম ছবির জন্য সংগীত পরিচালনাও করেছেন তিনি। বাবা মারা যাওয়ার সময় এ আর রহমানের নাম ছিল দিলীপ কুমার। সেই সময় থেকে তাঁর মা–ই তাঁকে মানুষ করেছেন। ১৯৮৮ সালে এ আর রহমানের ছোট বোন যখন প্রচণ্ড অসুস্থ, সেই সময় হিন্দু থেকে মুসলমান হন তিনি। ১৯৯৫ সালে সায়রা বানুকে বিয়ে করেন এ আর রহমান।  

default-image
বিজ্ঞাপন

বাংলাদেশের মোস্তফা সরয়ার ফারুকীর ‘নো ল্যান্ডস ম্যান’ ছবিতে সংগীত পরিচালক হিসেবে কাজ করেছেন উপমহাদেশের সংগীতে উজ্জ্বল নাম এ আর রাহমান। শুধু সংগীতে নয়, ফারুকীর এই ছবির সহপ্রযোজকও তিনি। নো ল্যান্ডস ম্যান ছবিটি এই মুহূর্তে রয়েছে সম্পাদনার টেবিলে।

default-image

সংগীত পরিচালক কিংবা সুরকার হয়েও যে রীতিমতো প্রথম সারির তারকা হওয়া যায়, আন্তর্জাতিক ব্র্যান্ড হয়ে ওঠা যায়, তার প্রমাণ এ আর রাহমান। ভারতের চলচ্চিত্র জগতে তিনি তারকাদের তারকা। নেপথ্যের মানুষ হয়েও এমন তারকাবাজি, এ আর রাহমানের আগে কোনো ভারতীয় সংগীত পরিচালক করে দেখাতে পারেননি। তাঁকে দক্ষিণ ভারতের মানুষ ডাকে ‘দ্য মোৎসার্ট অব মাদ্রাজ’ নামে।

default-image
বলিউড থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন