বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

‘কিম জিসুক অ্যাওয়ার্ড’-এ মনোনয়ন পাওয়া মোস্তফা সরয়ার ফারুকী সম্পর্কে উৎসব কর্তৃপক্ষ লিখেছেন, বাংলাদেশি নব তরঙ্গধারার নেতৃস্থানীয় নির্মাতা মোস্তফা সরয়ার ফারুকীর সিনেমার সঙ্গে আগে থেকেই পরিচিত কোরীয় দর্শক। ২০১২ সালে বুসান উৎসবের সমাপনী ছবি ছিল টেলিভিশন। ধর্ম, গোত্র ও জাতীয়তাবাদের ওপর ভিত্তি করে যে বৈষম্য ও অপরাধ সংগঠিত হয়, নো ল্যান্ডস ম্যান সিনেমায় তা–ই নিয়ে কাজ করেছেন নির্মাতা।

default-image

এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে ছবিটির বিষয় সম্পর্কে মোস্তফা সরয়ার ফারুকী বলেন, ‘নির্মাতা হিসেবে নিজের ব্যক্তিগত কিছু অনুভূতিকে সিনেমায় ব্যাখ্যা করেছি! আমার জন্ম হয়েছে নোয়াখালীতে। এই এলাকার মানুষদের বহু বছর ধরেই ট্রল করা হয়। খুব কম বয়সেই আমি বুঝে গেছি, এই ট্রলের হাত থেকে নিজেকে রক্ষা করার উপায় খুঁজে বের করতে হবে! কোন এলাকা থেকে এসেছি, তা নিয়ে মিথ্যা বলা শুরু করলাম।

default-image

আমার স্কুলের কোনো বন্ধুকে বাড়িতে আনতাম না, তারা যেন আমার মা–বাবার আঞ্চলিক ভাষা শুনে আমার এলাকা সম্পর্কে ধারণা করতে না পারে। বড় হতে হতে বুঝতে পেরেছি, এটা মনের ওপর কেমন প্রভাব ফেলে। কীভাবে আমাদের হৃদয়ে একটি শূন্যস্থান তৈরি করে দেয়, যখন আমরা নিজের পরিচয়ে পরিচিত হতে পারি না, নিজেকে গ্রহণ করতে পারি না, নিজের পরিচয় নিয়ে স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করতে পারি না। বিষয়টি আমার কাজে অনুপ্রেরণা জুগিয়েছে। ছোটবেলার এই অস্তিত্বহীনতার ব্যথা নো ল্যান্ডস ম্যান-এর কেন্দ্রীয় চরিত্র অনুভব করে।’

নো ল্যান্ডস ম্যান-এর অন্যতম প্রযোজক নুসরাত ইমরোজ তিশা তাঁর ফেসবুকে লিখেছেন, ‘প্রযোজক হিসেবে আমার প্রথম প্রচেষ্টা! নো ল্যান্ডস ম্যান ছবির প্রথম লুক শেয়ার করতে পেরে আমি খুবই খুশি। আর প্রথম লুক শেয়ার করার কী দারুণ একটা উপলক্ষ: চলচ্চিত্রটি বুসান চলচ্চিত্র উৎসবে কিম জিসুক পুরস্কারের জন্য মনোনীত হয়েছে! টিমের জন্য শুভকামনা।’

default-image

নো ল্যান্ডস ম্যান–এর সংগীত পরিচালনা করেছেন এ আর রহমান। পাশাপাশি তিনি সিনেমাটির সহপ্রযোজক হিসেবেও যুক্ত হয়েছেন। সিনেমাটিতে বিভিন্ন চরিত্রে অভিনয় করেছেন তাহসান খান, অস্ট্রেলিয়া থেকে মেগান মিশেল, ভারত থেকে ঈশা চোপড়া, বিক্রম কোচার, কিরণ খোজে প্রমুখ। আগামী ৬ অক্টোবর থেকে শুরু হচ্ছে বুসান চলচ্চিত্র উৎসব।

ঢালিউড থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন