নাম প্রকাশ না করার শর্তে প্রত্যক্ষদর্শী এ–ও বলেন, ‘ডিপজলের এমন সমাধান ওমর সানী মেনে নিতে পারেননি। কয়েক দিন ধরে তাই জায়েদ খানকে খুঁজছিলেন। ধরেই নিয়েছিলেন, ডিপজলের ছেলের বিয়ের অনুষ্ঠানে জায়েদকে পাওয়া যাবেই। অনুষ্ঠানে ওমর সানী ঢুকেই সরাসরি জায়েদ খানকে চড় মারে। তখন ডিপজলসহ চলচ্চিত্রের কয়েকজন অভিনয়শিল্পী সোফায় বসা ছিলেন।

default-image

চড় মারার সময় জায়েদকে উদ্দেশ করে ওমর সানী বলেন, “তোরে (জায়েদ) না নিষেধ করছি, আমার বউরে (মৌসুমি) ডিস্টার্ব করবি না। কোনো ফাজলামি করবি না। অসম্মান করে কথা বলবি না।” সানীর চড় খাওয়া ও এমন সব কথা শুনে জায়েদ খান কোমর থেকে পিস্তল বের করে বলেন, “গুলি করে দেব।” ওমর সানী পাল্টা জায়েদ খানকে বলেন, “গুলি তোর ...(প্রকাশ অযোগ্য)। তুই আমারে চিনস, আমি ওমর সানী।”

default-image

জায়েদের পিস্তল বের করা দেখে ডিপজল উঠে দাঁড়ান। বলেন, “এই, আমার বিয়ের অনুষ্ঠান। এত বড় অনুষ্ঠান। এত মানুষ ছিল, এসব কী।” অনেক মানুষ থাকায় কেউ টের পায়নি। এরপর ওমর সানীকে ডেকে ডিপজল বলেন, “খাইয়া যাবা না?” সানী বলেন, “আমার মাথা গরম। আমি খাব না।” এরপর গাড়ি চালিয়ে বের হয়ে যান ওমর সানী। সাড়ে নয়টার দিকে ঘটনা ঘটেছে। ওমর সানী বের হওয়ার আধা ঘণ্টা পর জায়েদ খানও বের হয়ে যান।’

ঘটনার ব্যাপারে চলচ্চিত্র অভিনেতা ও প্রযোজক ডিপজল বলেন, ‘ওই একটু ধাক্কাধাক্কি হয়েছে দুজনের মধ্যে। এইটুকুই।’ শুনলাম, ওমর সানীকে মারার জন্য জায়েদ খান পিস্তল বের করেছিলেন। আপনি তা মীমাংসা করে দিয়েছেন? কী কারণে এ ঘটনা ঘটেছে জানতে চাইলে ডিপজল বলেন, ‘না ভাই, আমি এসব জানি না। এসব ব্যাপারে আমার কোনো কিছু বলার ইচ্ছা নাই। বলতেও চাই না।’

default-image

তবে ডিপজল বলেন, ‘হয়তো আগে থেকে তাঁদের মধ্যে রাগারাগি ছিল, এ কারণে ঘটনাটি ঘটেছে। আমি বিয়ে নিয়ে ব্যস্ত ছিলাম, এর বেশি কিছু জানি না।’

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন প্রথম আলোকে জানান, ওমর সানীকে পিস্তল বের করে গুলি করার হুমকি দেওয়ার সময় উপস্থিত ছিলেন চলচ্চিত্র অঙ্গনের অনেকেই।

ঢালিউড থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন