default-image

‘হাওয়া’র জন্য শুভকামনা জানিয়ে পোস্টে তিনি আরও লিখেছেন, ‘এত এত মানুষের ভালোবাসা বুকে নিয়ে এগিয়ে চলা প্রতিটা মুহূর্তই আমার কাছে মহামূল্যবান ছিল। “হাওয়া”র জয় হোক, জয় হোক দর্শকের। বাংলা সিনেমার জয় হোক।’ এই পোস্ট ধরে কথা হয় অভিনেতার সঙ্গে। চঞ্চল চৌধুরী জানান, ‘“হাওয়া”র প্রচারণায় যোগ দেওয়ার আগে একটি অ্যাওয়ার্ড অনুষ্ঠানে যোগ দিতে যুক্তরাষ্ট্রে গিয়েছিলেন। চলতি মাসের ৮ তারিখে দেশে ফিরেই ছবির প্রচারে নামেন। চঞ্চল বলেন, ‘ক্লান্তিহীনভাবে নানা জায়গায় বিশেষ করে বিশ্ববিদ্যালয়গুলোয় গিয়েছি। ছবি মুক্তির পর হলে হলে গিয়েছি। এখন সিনেমাটি দর্শক দেখছেন। আমিও শুটিংয়ে ফিরলাম। মুক্তির আগে ছবিটি সম্পর্কে দর্শককে জানানোর জন্য মাঠে ছিলাম। মুক্তির পর দর্শকের কাছে ছেড়ে দিয়েছি ছবিটি। এটি এখন জনগণের। আমরা পাশে আছি। কিন্তু এখন ছবিটির মূল্যায়ন করবেন দর্শক। ছবির সঙ্গে অভিনয়শিল্পীসহ সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের সম্পর্ক থাকে মুক্তির আগপর্যন্ত, মুক্তির পর ছবিটি কত দূর এগোবে, তা দর্শকের ওপর নির্ভর করে।’

default-image

এদিকে ‘হাওয়া’ মুক্তির তৃতীয় দিন চলছে। বিভিন্ন প্রেক্ষাগৃহ থেকে হাউসফুল শো চলার খবর আসছে। রেকর্ডসংখ্যক আগাম টিকিট বিক্রি হয়েছে, যাকে প্রত্যাশার চেয়ে বেশি প্রাপ্তি বলেই মনে করছেন চঞ্চল, ‘মুক্তির আগে যে ধরনের হইচই দেখেছি, বিশেষ করে ছবির একটি গান তো রাতারাতি ভাইরাল। জনমানুষের গান হয়ে উঠেছে এটি। তাই মুক্তির পর কী হতে পারে, তা নিয়ে কিছুটা ভাবনা তো ছিলই। তবে দর্শক আমাদের বিমুখ করেননি। প্রত্যাশার চেয়ে কিছুটা হলেও বেশি পেয়েছি।’

default-image

ছবিটি নিয়ে আরও পর্যবেক্ষণ আছে এই অভিনেতার। তিনি মনে করেন, আগাম টিকিট কেটে যেসব দর্শক ছবি দেখছেন, তাঁরা কোর দর্শক। মুক্তির পর প্রথম সপ্তাহ না গেলে ছবিটি নিয়ে ভালোভাবে বলা মুশকিল। কারণ, এক সপ্তাহ যাওয়ার পর সাধারণ দর্শকের ভাবটা বোঝা যায়। এদিকে আগামীকাল থেকে পুবাইলের ধারাবাহিক ‘ষন্ডা পান্ডা’ নাটকের বাকি অংশের শুটিংয়ে অংশ নেবেন চঞ্চল চৌধুরী। বৃন্দাবন দাশের লেখা ধারাবাহিকটির পরিচালক সালাহউদ্দিন লাভলু।

ঢালিউড থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন