২০ নভেম্বর ছিল বুবলীর জন্মদিন। ৩৩ পেরিয়ে এবার তিনি ৩৪ বছরে পা দিলেন। এ দিন তিনি ছবির শুটিংয়ে ছিলেন। এক ফাঁকে প্রথম আলোর সঙ্গে কথা বলেন। এবারের জন্মদিনে তিনি জীবনের সেরা উপহার পেয়েছেন বলেও তখন জানান। বুবলী প্রথম আলোকে বলেন, ‘জন্মদিনের সেরা উপহার ডায়মন্ডের নাকফুল, বীরের বাবা শাকিব খান দিয়েছে। গত সপ্তাহে আমাকে সে এই উপহার কিনে দিয়েছে। আমি আগে থেকে জানতাম না উপহারটি কী। যখন খুলে দেখলাম নাকফুল, দেখে আমার চোখে জল চলে এসেছিল। এটি হাতে নিয়ে আমি আবেগপ্রবণ হয়েছিলাম। আমি মনে করি, এ উপহার আমার জন্য তার অন্য রকমের ভালোবাসার বহিঃপ্রকাশ।’

আর এই খবর পৌঁছে যায় অপু বিশ্বাসের কান পর্যন্ত। শাকিব খানের কাছ থেকে পাওয়া বুবলীর এই উপহারের খবরটি নিয়ে অপু ফেসবুকে একটি পোস্ট দেন। ‘শাকিবের কাছ থেকে ডায়মন্ডের নাকফুল পেয়ে বুবলীর চোখে জল’, এমন শিরোনামের একটি সংবাদ নিজের ফেসবুক ওয়ালে শেয়ার করে  একাধিক হাসির ইমোটিকন দিয়েছেন অপু বিশ্বাস। শুধু তা-ই নয়, অপু লিখেছেন, ‘কী যে মজা, মজা।’ ফেসবুকে অপু বিশ্বাসের সেই পোস্টের মন্তব্যের ঘরে তাঁর শুভাকাঙ্ক্ষীরা নানা ধরনের মন্তব্য করেছেন। কেউ কেউ লিখেছেন, ‘জাতি ডায়মন্ডের ফুলটা দেখতে চায়।’ আবার কেউ লিখেছেন, ‘আহা রে! সান্ত্বনামূলক উপহার।’ চিত্রনায়িকা সুবহা মজা করে লিখেছেন, ‘হালকা পেঁপে কালার।’

অপু বিশ্বাসের এমন পোস্টের কয়েক ঘণ্টা পর আজ সকালে শবনম বুবলী নিজের ফেসবুকে একটি পোস্ট লিখেছেন। বুবলীর লেখা সেই পোস্ট হুবহু এ রকম, ‘একজন হঠাৎ করেই বলে উঠল...আপনাদের ছবিসহ নিউজ তার নিজের ফেসবুক ওয়ালে বাঁধাই করে রাখছে। এটাই তো আপনার মজা, তার শয়নে স্বপনে শুধুই আপনি। হাহাহা।’

অপু বিশ্বাস ও শবনম বুবলীর বৈরিতার খবর দেশের বিনোদন দুনিয়ায় চর্চিত। অপু ও বুবলীর দুজনের নানা কর্মকাণ্ডেও তাঁদের সম্পর্ক যে ভালো নয়, তা বারবার স্পষ্ট হয়েছে। এর মধ্যে গতকাল ঘটল একেবারে ভিন্ন ঘটনা। বুবলীকে নিয়ে প্রকাশিত একটি সংবাদ নিজের ফেসবুক ওয়ালে পোস্ট করেন অপু বিশ্বাস, যা নিকট অতীতে হয়নি। তাই বিষয়টা বিনোদন অঙ্গনের সবাইকে হতবাক করেছে। অনেকে ভাবতে থাকেন, তাহলে কি বুবলী-অপুর মধ্যে সম্পর্ক ভালো হয়ে গেছে? আদতে বিষয়টা যে তা নয়, সেটা পোস্টে শেয়ার করা ক্যাপশনের কয়েকটি শব্দের মাধ্যমে পরিষ্কার ইঙ্গিত পাওয়া যায়। বিনোদন অঙ্গনের অনেকে বলেছেন, এই পোস্ট শেয়ার করে বুবলীকে এক রকম খোঁচা মেরেছেন অপু বিশ্বাস। বুবলীও বেশি সময় নিলেন না অপুকে খোঁচা মারতে।