পাকিস্তানের প্রথম কোনো সিনেমা হিসেবে ‘জয়ল্যান্ড’ চলতি বছর ৭৫তম কান চলচ্চিত্র উৎসবে আঁ সার্তে রিগা বিভাগে মনোনয়ন পেয়েছিল। সিনেমাটি একই সঙ্গে কুইয়ার পাম ও আঁ সার্তে রিগা বিভাগ থেকে জুরি পুরস্কার জিতেছিল। কান উৎসব থেকে এমন প্রাপ্তিতে আনন্দে ভেসেছিল পাকিস্তান। সিনেমাটি ১৭ আগস্ট সেন্সর সনদও পেয়েছিল। পাকিস্তানি তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, আগে সেন্সর সনদ দিলেও এখন তারা সেই সিদ্ধান্ত থেকে সরে এসেছে।

মন্ত্রণালয় থেকে গতকাল লিখিত বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ‘সিনেমার বিষয়বস্তুতে মারাত্মক আপত্তিকর উপাদান রয়েছে। এটা আমাদের সামাজিক মূল্যবোধ, নৈতিকতার আদর্শিক জায়গার সঙ্গে সাংঘর্ষিক। বিষয়টি পরিষ্কারভাবে মোশন পিকচার্স অধ্যাদেশ ১৯৭৯ সালের মূল্যবোধের “শালীনতা ও নৈতিকতার” ৯ ধারাবিরোধী। নির্দেশনায় আরও বলা হয়, “জয়ল্যান্ড” পুরো পাকিস্তানে মুক্তির অযোগ্য সিনেমা।’

এ বিষয়ে এখনো কোনো মন্তব্য করতে চান না পরিচালক সায়িম সাদিক। প্রযোজকের সঙ্গে কথা বলে শিগগির তারা গণমাধ্যমে লিখিত বিবৃতি দেবেন। ‘জয়ল্যান্ড’ পরিচালক সাদিকের প্রথম ছবি। প্রথম চলচ্চিত্রেই তিনি বেছে নিয়েছেন এমন একটি বিষয়কে, যা পাকিস্তানের মতো দেশের জন্য ভীষণ সংবেদনশীল। ছবির গল্প পুরুষতান্ত্রিক এক পরিবারের ছোট ছেলে হায়দারকে নিয়ে। একজনের বদলি হিসেবে সে ইরোটিক এক নাচের দলে যোগ দেয়। তারপরই শুরু হয় ঝামেলা। কারণ এরপর এক হিজড়া নারীর প্রতি ভালোবাসা জন্মায় তার। ছবির বিষয়বস্তু নিয়ে পাকিস্তানের একটি গোষ্ঠী দীর্ঘদিন ধরেই সমালোচনা করে আসছিল। ‘জয়ল্যান্ড’-ছবির প্রধান চরিত্রগুলোয় অভিনয় করেছেন রাস্তি ফারুক, আলিনা খান, সরওয়াত গিলানি, সানিয়া সাঈদ প্রমুখ।