default-image

বাদশাহ আকবরের সভায় একদিন কয়েকজন ঘোড়ার ব্যবসায়ী এল। তাদের কাছ থেকে বাদশাহ একটি ভালো জাতের আরবি ঘোড়া কিনলেন। সেই সঙ্গে ওই ঘোড়ার জন্য একই জাতের একটি মাদি ঘোড়া এনে দিতে বললেন তাদের।

বণিকেরা দুঃখ প্রকাশ করে বলল, এ বছর তারা কোনো উৎকৃষ্ট জাতের মাদি ঘোড়া সংগ্রহ করতে পারেনি। তবে যদি অগ্রিম ১৫ হাজার মোহর দেওয়া হয়, তাহলে হয়তো শিগগিরই একটি ভালো মাদি ঘোড়া এনে দেওয়া সম্ভব হবে।

বাদশাহ তাদের দাবিমতো অর্থ দিয়ে দিলেন।

এক বছর কেটে গেল, তাদের আর কোনো খোঁজই পাওয়া গেল না।

এই সময় বাদশাহ বীরবলকে এক অভিনব আদেশ দিলেন, ‘আমার রাজ্যের মূর্খ ব্যক্তিদের একটি তালিকা তৈরি করো।’

দুসপ্তাহ বাদে বীরবল তাঁর তৈরি করা তালিকা রাজার কাছে পেশ করলেন। কিন্তু অদ্ভুত ব্যাপার, তালিকায় আকবরের নামই সবার ওপরে।

আকবর চমকে উঠে বললেন, ‘বীরবল, এটা কী?’

বীরবল শান্তভাবে বললেন, ‘এ রকম লোককে মূর্খ ছাড়া আর কী বলা যাবে, যে নাকি বিদেশি লোকদের অবলীলায় অগ্রিম টাকা দিতে পারে তাদের নামধাম, ঠিকানা, পরিচয় না জেনেই।’

‘কিন্তু মূর্খ, বণিকেরা তো ফিরে আসতে পারে! ঘোড়া নিয়ে যদি তারা আমার কাছে ফিরে আসে!’

‘জাহাঁপনা, তা যদি হয়, তখন আমি আপনার নাম বাদ দিয়ে সে জায়গায় তাদের নাম বসিয়ে দেব!’ রসিক চূড়ামণি বীরবল হাসতে হাসতে উত্তর দিলেন।

বিজ্ঞাপন
একটু থামুন থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন