default-image

নাটকই সব

আমি কেট উইন্সলেট। বার্কশায়ারের রেডিংয়ে আমার জন্ম। আমরা তিন বোন, এক ভাই। মা ছিলেন দারুণ রাঁধুনি। তাঁর আরেকটা গুণ, তিনি চমৎকার গল্প বলতে পারতেন। বাবা ছিলেন একজন পোস্টম্যান, একজন ভ্যানচালক, একজন ক্রিসমাস ট্রি বিক্রেতা, আরও বিচিত্র ধরনের কাজ তিনি করেছেন। আর হ্যাঁ, তিনি একজন অভিনয়শিল্পীও ছিলেন। অভিনয় তাঁর পকেটে কিছু যোগ করেনি, তবু কাজটা তিনি ভালোবাসতেন। এই শিল্পের প্রতি আমার ঝোঁক সম্ভবত তাঁর কাছ থেকেই পাওয়া। স্কুলে গণিত, ইংরেজি, ইতিহাস...কোনো বিষয়ই আমার ভালো লাগত না। আমার ভালো লাগত নাটক। সমস্ত আবেগ ছিল নাটক ঘিরে।

কিছু পেতে হলে

স্কুলের নাটকে আমি কখনোই তেমন ভালো কোনো চরিত্র পাইনি। পরির চরিত্র, কুমিরের চরিত্র এমনকি কাকতাড়ুয়ার চরিত্রেও সানন্দে অভিনয় করেছি। চরিত্রটা ছোট হোক, বড় হোক, সব সময় নিজের সেরাটা দিতে চেষ্টা করেছি। বাবা বলতেন, কিছু পেতে হলে কিছু দিতে হয়। অতএব পরিশ্রম অব্যাহত রাখো। আমি যথাসাধ্য সেই চেষ্টাই করেছি। ফলাফলও পেয়েছি। স্কুলে একমাত্র নাটকের ক্লাসেই আমি ‘এ’ পেয়েছিলাম। হ্যাঁ, আমার স্কুলজীবনে এই একটাই ‘এ’ গ্রেড ছিল।

স্যান্ডউইচের দোকান থেকে

সত্যি বলছি, সিনেমায় অভিনয় করার সাহসও আমার ছিল না। তাহলে এত দূর পথ কীভাবে পাড়ি দিলাম? বলছি।
স্কুলে পড়ার সময় মায়ের সঙ্গে স্যান্ডউইচের দোকানে কাজ করা শুরু করেছিলাম। অতএব যেখানেই কোনো ‘অডিশন’-এর খবর পেতাম, সেখানেই ছুটে যাওয়ার মতো হাতখরচ উপার্জনের একটা পথ হয়েছিল। কিন্তু দুর্ভাগ্যজনকভাবে আমি শুধু অডিশন দিয়েই যাচ্ছিলাম, কোনো চরিত্রেই কাজের সুযোগ হচ্ছিল না। আমি সব সময় নিজেকে অন্যের সঙ্গে তুলনা করতাম। স্কুলে সবাই আমাকে ‘ভোটকু’ বলে খ্যাপাতো। অভিনয় করতে চাইতাম বলে আমাকে নিয়ে হাসাহাসি করত, জ্বালাতন করত। মনে আছে, একবার আমাকে স্কুলের আলমারির ভেতর আটকে রেখে সবাই হো হো করে হাসছিল। আমি সুন্দরী ছিলাম না। ‘তোমার সৌভাগ্য যে মোটা মেয়েদের চরিত্রে অভিনয়ের সুযোগ পাচ্ছ’ এমন কথাও শুনতে হয়েছে। আর বারবার শুনতে হয়েছে একটি বাক্য, ‘আমরা যা খুঁজছি, তুমি তা নও, কেট।’

আমি প্রস্তুত

লোকের বাজে মন্তব্য আমি অগ্রাহ্য করেছি। বিশ্বাস করেছি নিজেকে। আমাকে এ সবকিছুর ঊর্ধ্বে উঠে ভাবতে হয়েছে, কঠোর পরিশ্রম করতে হয়েছে। ভালোবাসার জিনিসটা পেতে হলে গোঁয়ার হতে হয়। বিশ্বাস করতে হয়, আমি এটার যোগ্য। কখনো কখনো এই বিশ্বাস করাটাই সবচেয়ে কঠিন।
একদিন একটা অডিশনে হাজির হয়েছি। চুলটা ভালো না, পা-গুলো বেশি বড়, শরীরের গঠনটা মিলছে না...এসব যুক্তিতে অডিশনে একের পর এক মেয়েরা বাদ পড়ছিল। আমি দাঁড়িয়েছিলাম লাইনের সবচেয়ে পেছনে। কিন্তু নির্বাচকদের সামনে যখন দাঁড়িয়েছি, তখন আমার সমস্ত মনোযোগ কেন্দ্রীভূত ছিল। তারা বলেছিলেন, ‘কেট, তুমি কি প্রস্তুত?’ আর আমি বলেছিলাম, ‘আপনারা আমাকে গ্রহণ করতে প্রস্তুত তো!’

ইংরেজি থেকে অনুবাদ: মো. সাইফুল্লাহ

বিজ্ঞাপন
একটু থামুন থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন