চেস্টার যেভাবে গবেষক

কোথাও একটা গন্ডগোল হয়েছে ধরেই ফিজিক্যাল রিভিউর পক্ষ থেকে দুটি সমাধানের প্রস্তাব এল। হেথারিংটনকে বলা হলো, হয় আপনি পুরোটাই নতুন করে লিখে পাঠান, নয়তো দ্বিতীয় গবেষকের নাম যোগ করুন।

হেথারিংটন পড়লেন বিপাকে। মনে রেখো, ঘটনাটা সত্তরের দশকের। তখন না ছিল কম্পিউটার, না ইন্টারনেট। মোটাসোটা গবেষণাপত্রের পুরোটাই হেথারিংটন লিখেছিলেন টাইপরাইটারে। পুরোটা আবার লিখতে যাওয়া মানে সময়ের ভীষণ অপচয়। আর দ্বিতীয় প্রস্তাবটিও মনে মনে নাকচ করে দিলেন তিনি। কারণ, কে চায় নিজের মেহনতের ফল অন্যকে দিতে? কেবল নামই তো নয়, টাকাপয়সার ব্যাপারটাও এখানে গুরুত্বপূর্ণ। তাই পুরো একটা বিকেল ভেবেটেবে হেথারিংটন ঠিক করলেন, গবেষণাপত্রের সহলেখক হিসেবে চেস্টারের নাম জুড়ে দেবেন। তা এই চেস্টারটা আবার কে? হেথারিংটনের পোষা সিয়ামিজ বিড়াল!

default-image

কিন্তু স্বনামধন্য একটা জার্নালের গবেষণাপত্রে লেখক হিসেবে শুধু ‘চেস্টার’ তো আর দেওয়া যায় না। চাই সুন্দর একটা নাম। এ কারণে হেথারিংটন চেস্টারের পুরো নাম দিলেন এফ ডি সি উইলার্ড। এখানে ‘এফ’ ও ‘ডি’র পূর্ণরূপ হলো ফেলিস ডমেস্টিকাস (বিড়ালের বৈজ্ঞানিক নাম)। আর ‘সি’ হলো চেস্টার এবং উইলার্ড ছিল চেস্টারের বাবা। ব্যস, নামটা লিখে সহলেখককে বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন সহকর্মী হিসেবে পরিচয় করিয়ে দিলেন হেথারিংটন।

গবেষণাপত্রটি পুনরায় পাঠালে সাদর গ্রহণ করল ফিজিক্যাল রিভিউ। প্রকাশিতও হয়ে গেল ১৯৭৫ সালের নভেম্বরে। নভেম্বরেরই শেষ দিকে মিশিগান স্টেট ইউনিভার্সিটির পদার্থবিজ্ঞান বিভাগের চেয়ারম্যান ট্রুম্যান উডরাফ একটা চিঠি পাঠালেন। চিঠিতে অনেক প্রশংসা করেটরে উইলার্ডকে সোজা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ানোর প্রস্তাবও দিয়ে ফেললেন তিনি! ‘বিশিষ্ট বিজ্ঞানী’ এফ ডি সি উইলার্ড হয়তো প্রস্তাবটা পাত্তাই দেননি!

থলের বিড়াল বেরিয়ে এল

সব ঠিকঠাকই চলছিল। কিন্তু মুশকিল বাধল, হেথারিংটনের এক সহকর্মী যেদিন উইলার্ডের সঙ্গে কথা বলতে চাইলেন। এক সাক্ষাৎকারে হেথারিংটন বলেছিলেন, ‘একদিন এক সহকর্মী আমার সঙ্গে কথা বলতে চাইলেন। কিন্তু সে সময় আমি বাসায় ছিলাম না, তাই তিনি উইলার্ডের সঙ্গেই কথা বলতে চাইলেন। ফলে খুব দ্রুতই থলের বিড়ালটা বেরিয়ে এল এবং সবাই তুমুল মজাও পেল।’

১৯৭৮ সালে সাধারণ মানুষও ব্যাপারটা জেনে ফেলল। সে বছর ফ্রান্সে এক বৈজ্ঞানিক সম্মেলনে ‘স্বয়ং প্রফেসর’ এফ ডি সি উইলার্ডের ডাক পড়ল! বেশ কিছু কাগজপত্রও পাঠানো হলো, যেখানে তার স্বাক্ষর দরকার। এবারও হেথারিংটন রসিকতা করতে ছাড়লেন না! নিজের স্বাক্ষরটা করে চেস্টারের পায়ে কালি মেখে দিলেন। তারপর পায়ের ছাপ দিয়ে দিলেন এফ ডি সি উইলার্ডের জন্য নির্ধারিত স্বাক্ষরের জায়গায়! এমন বিচিত্র স্বাক্ষর দেখে সম্মেলনের লোকজনও বুঝে ফেলল আসল ঘটনা কী।

শেষমেশ কী হলো

সহলেখক হিসেবে পোষা বিড়ালের নাম দিয়ে মোটেও অনুতপ্ত বা বিব্রত নন হেথারিংটন। একবার বলেছিলেন, এই অস্বাভাবিক লেখকের ব্যাপারটা জানাজানি হওয়ার পরও মানুষ গবেষণাপত্রটিকেই বেশি মনে রাখবে।

শুধু ওই একবারই নয়, আরও একবার গবেষণাপত্রের লেখক হিসেবে আবির্ভূত হয়েছিল চেস্টার। সেটা ১৯৮০ সালের কথা। সেবার ফরাসি ও মার্কিন গবেষকেরা একই বিষয়ে গবেষণা করেছিলেন। হেথারিংটনও ছিলেন ওই দলে। কিন্তু শেষতক গবেষণার ফল নিয়ে তাঁর ছিল বেজায় অসন্তুষ্টি। তাই তিনি প্রস্তাব দিয়েছিলেন, ‘মনে খচখচানি থেকে যাওয়া একটা গবেষণাপত্রে আমাদের সবার নাম রাখার কী দরকার! আসুন, এর বদলে লেখকের নাম হিসেবে এফ ডি সি উইলার্ডই জুড়ে দিই। পরে ভুলচুক ধরা পড়লেও আমাদের আর দায় থাকবে না।’

ব্যস, প্রস্তাবটা লুফে নিলেন বাকি গবেষকেরা এবং তা প্রকাশিত হলো বিখ্যাত এক ফরাসি জার্নালে। আর এভাবেই প্রথম বিড়াল হিসেবে একক গবেষণাপত্রের লেখক হিসেবেও নাম লিখিয়ে ফেলল চেস্টার!

চেষ্টা ছাড়াই বিজ্ঞানী বনে যাওয়া চেস্টার আজ আর বেঁচে নেই। ১৯৮২ সালে আনুমানিক ১৪ বছর বয়সে চিরবিদায় নিয়েছে সে। ৩৫ বছর শিক্ষকতা করে ইমেরিটাস অধ্যাপক হিসেবে অবসরে গেছেন হেথারিংটন। তবে এখনো গবেষণা চালিয়ে যাচ্ছেন। প্রিয় বিড়াল চেস্টার কিংবা সহগবেষক এফ ডি সি উইলার্ডকে নিশ্চয়ই মিস করেন তিনি!

সূত্র: সায়েন্স ডটওআরজি

একটু থামুন থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন