প্রথম বড় চরিত্রে অভিনয় করার সুযোগ পান ২০০৭ সালে মুক্তি পাওয়া নকড আপ ছবিতে। ওই ছবির শুটিং যেদিন শেষ হয়, সেদিনই কেন ঠিক করেন, চিকিৎসা পেশা থেকে অবসর নিয়ে পুরোদস্তুর অভিনেতা হবেন। কিন্তু ছেড়ে দিয়েও পুরোপুরি ছাড়েননি জিয়ং। নিজের মেডিকেল প্র্যাকটিসিং লাইসেন্স হালনাগাদ রাখতে এখনো টুকটাক ডাক্তারি করেন। শুধু বদলে গেছে সময়টা। একটা সময় তিনি দিনে চিকিৎসক আর রাতে কমেডিয়ান ছিলেন। আর এখন ঠিক উল্টো। মেডিকেল বোর্ড অব ক্যালিফোর্নিয়ার নিয়ম অনুযায়ী, নিজের চিকিৎসক লাইসেন্স বজায় রাখার জন্য প্রত্যেক চিকিৎসককে প্রতি দুই বছরে অন্তত ৫০ ঘণ্টা চিকিৎসাসংক্রান্ত সেবা, গবেষণা, পড়াশোনা বা অন্যান্য দায়িত্ব পালন করতে হয়। তাই নিজের ‘চিকিৎসক’ সত্তাকে টিকিয়ে রাখতে এখন বিভিন্ন সময় অনলাইন কাউন্সেলিং, দাতব্য সেবা আর টেলিমেডিসিন সেবা দেন জিয়ং।

সূত্র: দ্য লিস্ট ও এনপিআর

জীবনযাপন থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন