চলনবিলে নাটোরের বড়াইগ্রাম, গুরুদাসপুর, সিংড়া, পাবনার চাটমোহর, ভাঙ্গুড়া, ফরিদপুর এবং সিরাজগঞ্জের তাড়াশ ও রায়গঞ্জ উপজেলার ১ হাজার ৬০০টি গ্রাম রয়েছে। এই বিস্তীর্ণ বিলের মধ্যেই রয়েছে বিভিন্ন নামে ৩৯টি বিল, ১৬টি নদী, ২২টি খাল ও অসংখ্য পুকুর।

বিশাল চলনবিলে ঘুরতে ঘুরতেই চোখে পড়ে জেলে নৌকা। জাল ফেলে মাছ ধরছে। শরতের বিলে নানা জাতের পাখির দেখা মেলে। বর্ষার এই সময় বেশি চোখে পড়ে মাছরাঙা। মাছের সঙ্গে চলে তাদের লুকোচুরি।

বিকেল গড়িয়ে সন্ধ্যা ঘনিয়ে আসে। বিলের বিশালতা থেকে আবার গ্রাম ঘেঁষে চলতে থাকে আমাদের নৌকা। আমাদের মতোই সারি ধরে ঘরে ফিরছে হাঁসের দল। দিনভর বিলে চলা নৌকাগুলো তখন বাড়ির ঘাটে বাঁধা পড়ছে। কোনো কোনো বাড়ি থেকে ভেসে আসছে পাঁচফোড়নের ঘ্রাণ। তবে আমাদের নাকে স্থায়ী হয়ে বসে জলজ ঘ্রাণ। যে ঘ্রাণ নিতে নিতে গন্তব্যে পৌঁছায় নৌকা।

চলনবিলের বুকে তখন সন্ধ্যা।

default-image

জেনে নিন

দিলপাশার স্টেশন ছাড়াও আরও অনেক জায়গা থেকেই চলনবিল ঘুরতে যাওয়া যাবে। পাবনার চাটমোহর থেকে চাটমোহর-বোয়ালমারী সড়ক এবং চাটমোহর-মান্নাননগর সড়ক ধরেও যাওয়া যাবে চলনবিলে। এ ছাড়া সিরাজগঞ্জ থেকে হাটিকুমরুল সড়ক ধরে এগোলেই চোখে পড়বে চলনবিলের মনোমুগ্ধকর দৃশ্য। নাটোরের সিংড়া উপজেলার দক্ষিণ-পূর্ব অংশে গেলে বোঝা যাবে বিলের বিশালতা। ভাড়া পাওয়া যাবে শ্যালো ইঞ্জিনচালিত নৌকা। চাইলে ডিঙিনৌকা নিয়েও ঘুরে বেড়ানো যাবে চলনবিলে।

ভ্রমণ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন