আসলে সাহিত্য সাময়িকী বা সাহিত্যপত্র সম্পাদনার কাজে দীর্ঘদিনের অভিজ্ঞতার আলোকে হাসনাত নিজেকে যে অবস্থানে নিতে সক্ষম হয়েছিলেন, তেমনটা খুব বেশি চোখে পড়ে না। বিশেষত তাঁর পঠন-পাঠনের ব্যাপ্তি এবং উন্নত রুচির সঙ্গে সঙ্গে কবি-লেখক ও শিল্পীদের সঙ্গে তাঁর অন্তরঙ্গতা একটি উন্নত মানের সাহিত্যপত্রিকা সম্পাদনার কাজে বিশেষভাবে সহায়ক হয়েছিল। কিন্তু এ জন্য কখনোই তাঁর মধ্যে কোনো অহমিকা দেখিনি।

আবুল হাসনাতের আকস্মিক মৃত্যুর পর কালি ও কলম-এর ভবিষ্যৎ নিয়ে অনেকেই শঙ্কিত হয়ে উঠেছিলেন; এবং একই বছরে সম্পাদকমণ্ডলীর সভাপতি ও সম্পাদকের মৃত্যুর ফলে সে শঙ্কা সৃষ্টির যথার্থ কারণও ছিল। এই অবস্থায় অনেকে ভেবেছিলেন, পত্রিকাটির প্রকাশনা এবার হয়তো বন্ধ হয়ে যাবে।

আমরা যাঁরা পত্রিকাটির সম্পাদকীয় পরিষদে কাজ করি, তাঁরাও সম্পাদক আবুল হাসনাতের আকস্মিক মৃত্যুতে হয়ে পড়েছিলাম কিছুটা বিচলিত ও নিরাশ। এমন এক অনিশ্চিত অবস্থায় সহকারী সম্পাদক মুহাম্মদ আশফাক খান আমাকে বললেন, ‘স্যার, আপনি যদি আমাদের গাইড করেন, তাহলে আশা করি পত্রিকা আমরা চালিয়ে নিতে পারব।’ আশফাকের কথায় উদ্দীপিত হলাম। কালি ও কলম-এর প্রকাশনা অব্যাহত থাকুক, এটা আমিও চাই। শুরু হলো আমাদের নতুন করে পথচলা—আবুল হাসনাতকে ছাড়া; আনিসুজ্জামানকে ছাড়া। তবে তাঁদের বাদ দিয়ে তো নয়। বিশেষত আবুল হাসনাত। সাহিত্যপত্রিকার সম্পাদনার কাজটি তিনি করতেন মনপ্রাণ দিয়ে। মনে হতো, সারাক্ষণ বুঝি সে চিন্তাতেই আছেন। দৈনিক সংবাদ-এর সাহিত্য সাময়িকী, গণসাহিত্য সম্পাদনার দায়িত্ব তো তিনি আগেই পালন করেছেন। বাংলাদেশ ও পশ্চিমবঙ্গের প্রবীণ-নবীন কবি-লেখকদের সঙ্গে ছিল তাঁর বিশেষ হৃদ্যতার সম্পর্ক। নিজে পড়তেনও প্রচুর, সংগ্রহ করতেন তারও বেশি।

আবুল হাসনাতের চলে যাওয়ার পর দুই বছর অতিক্রান্ত হয়েছে। এ সময়ে প্রায় নিয়মিতভাবেই কালি ও কলম প্রকাশিত হয়েছে। আর এ-ও ঠিক, হাসনাতের সম্পাদকত্বে পত্রিকাটি যে ছক মেনে বের হতো, আমরা তার তেমন কোনো ব্যত্যয় ঘটাইনি। সে চেষ্টাও করিনি। করার তেমন প্রয়োজন আছে বলেও আমাদের এখনো পর্যন্ত মনে হয়নি।

একটি উন্নত মানের সাহিত্যপত্রিকা কিংবা অন্য যেকোনো বিষয়ভিত্তিক সাময়িকপত্রের জন্য মানসম্পন্ন ভালো লেখা সংগ্রহ করা যে কত কঠিন, তা অভিজ্ঞ ব্যক্তিমাত্রই হাড়ে হাড়ে জানেন। হাসনাত সেদিক থেকে কিছুটা সৌভাগ্যবান ছিলেন বলে আমার মনে হয়। আমাদের যেসব কীর্তিমান লেখক ছিলেন, তাঁদের মধ্যে অনেকেই এখন আর বেঁচে নেই। যাঁরা বেঁচে আছেন, তাঁদের অনেকেও বয়সের কাছে নতিস্বীকারে বাধ্য হয়েছেন। অতএব আমরা ক্রমাগত চাপের মধ্যে থাকতে বাধ্য হচ্ছি।

তবু বর্তমানকে তো এগিয়ে নিয়ে যেতে হয় ভবিষ্যতের দিকে। এই যাত্রায় তখন কালি ও কলম সম্পাদনা করতে গিয়ে আরও বেশি করে বন্ধু আবুল হাসনাতকে মনে পড়ে, শুধু সম্পাদক হিসেবে নয়, সহযাত্রী হিসেবেও।