এরপরের ঘটনা, ওই ভালুককে নিয়েই কলেজ হোস্টেলের একটি কক্ষে থাকা শুরু করলেন বায়রন। শুধু তা-ই নয়, মাঝেমধ্যে ভোরবেলা দুজনকে একসঙ্গে কলেজ প্রাঙ্গণে মহাদর্পে পায়চারি করতেও দেখা যেতে লাগল।

লর্ড বায়রন ওই ভালুককে কলেজে ভর্তি করানোরও চেষ্টা করেছিলেন, কিন্তু সংগত কারণেই তাঁর চেষ্টা সফল হয়নি। একবার ভাবুন, আপনার পাশের বেঞ্চে বসে পরীক্ষা দিচ্ছে সাত ফুট লম্বা একটা লোমশ বাদামি ভালুক। এমন যদি ঘটে, সে সময় প্রশ্নপত্রের দিকে তাকানোর ফুরসত কি পাবেন আপনি?

না পাওয়ার সম্ভাবনাই বেশি থাকবে।

লর্ড বায়রনের পশুপ্রীতি শুধু ভালুকেই সীমাবদ্ধ ছিল, এমন নয়। এ কবির পোষা প্রাণীদের দলে ছিল হাঁস, ঘোড়া, বাঁদর, ময়ূর, ইগল, গিনি মুরগি, ভোঁদড়, শিয়াল, বগলা পাখি, মিসরীয় বক, ছাগল ও কাক!

ফলে বায়রন যখন লেখেন, ‘মানুষেরে আমি বাসি না কম ভালো/কেবল প্রকৃতিরে বাসি বেশি’, তখন মনে হয়, তিনি যদি এমন করে না লেখেন, তবে আর কে লিখবেন!

সূত্র: সিএসকেডটইউকে

● গ্রন্থনা: মাহীন হক