বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

অনেক বন্যাদুর্গত এলাকার মানুষেরা এখনো নিজ নিজ ঘরবাড়িতে ফিরতে পারেনি। অনেকের ঘরবাড়ি আর বসবাসের উপযোগী নেই। এই ঘরহারা মানুষেরা বিভিন্ন উঁচু চরের অস্থায়ী আশ্রয়কেন্দ্রে এখনো রয়ে গেছে। সেসব জায়গায় নিরাপদ খাওয়ার পানির ব্যবস্থা নেই। সরকারি প্রশাসন কিছু অগভীর নলকূপ বসিয়েছে, কিন্তু আশ্রিত মানুষের সংখ্যার তুলনায় নলকূপের সংখ্যা নিতান্তই কম। যেমন বগুড়া জেলার সারিয়াকান্দির চালুয়াবাড়ি ইউনিয়নের আউচপাড়া চরে আশ্রয় নিয়েছে ৪০০টি বন্যার্ত পরিবার। সেখানে প্রতি ৫০টি পরিবারের জন্য মাত্র একটি করে নলকূপ বসানো হয়েছে। কিন্তু এটা যে প্রয়োজনের তুলনায় নিতান্তই কম, তা বলার অপেক্ষা রাখে না।

বন্যায় ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত জেলা কুড়িগ্রামের রাজীবপুর উপজেলার কোদালকাটি ইউনিয়নের ৬ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য রফিকুল ইসলাম বন্যাদুর্গত মানুষের নিরাপদ পানির কষ্টের কথা স্বীকার করে বলেছেন, শুধু তাঁর ওয়ার্ডেই ৩০টি নলকূপ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে; কিন্তু সরকারের পক্ষ থেকে নষ্ট নলকূপগুলো সংস্কারের কোনো উদ্যোগ নেওয়া হয়নি। আসলে এবারের বন্যায় সারা দেশে যত নলকূপ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে, তার অর্ধেকই কুড়িগ্রাম জেলায়। হাওরাঞ্চলের জেলা সুনামগঞ্জেও শত শত নলকূপ বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। কোনো কোনো ইউনিয়নের শতভাগ নলকূপ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

বন্যার পানি অনেকটাই নেমে গেছে। কিন্তু তাতে নিরাপদ পানির সংকট কাটেনি। নষ্ট ও ক্ষতিগ্রস্ত নলকূপগুলো মেরামত না করা পর্যন্ত এই সংকট কাটবে না। তাই অবিলম্বে নলকূপ সংস্কার এবং স্থানবিশেষে নতুন নলকূপ বসানোর উদ্যোগ নেওয়া একান্ত জরুরি।

সম্পাদকীয় থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন