সন্দ্বীপ উপজেলা যুবলীগের সিনিয়র সহসভাপতি দিদারুল আলম বলেন, ‘চট্টগ্রাম থেকে আমরা ৮০০–এর মতো নেতা–কর্মী এসেছি। সন্দ্বীপ উপজেলা যুবলীগের নেতা–কর্মীদের কমলা রঙের টি-শার্ট ও টুপি দেওয়া হয়েছে। অন্য উপজেলার আলাদা রং।’

মুন্সিগঞ্জের সিরাজদিখান উপজেলা যুবলীগের নেতা–কর্মীদের শুধু লাল-সবুজ টুপি দেওয়া হয়েছে।

যুবলীগের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের মহাসমাবেশস্থলে প্রবেশের জন্য পাঁচটি গেট করা হয়েছে। মহাসমাবেশকে কেন্দ্র করে পর্যাপ্ত নিরাপত্তাব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে।

ছুটির দিনেও যানজট

মহাসমাবেশকে কেন্দ্র করে শুক্রবার সাপ্তাহিক ছুটির দিনও রাজধানীর সড়কগুলোতে দেখা গেছে যানজট। ঢাকায় ঢোকার প্রবেশমুখে রয়েছে গাড়ির চাপ। রায়েরবাগ, বাবুবাজার ও গাবতলীতে দেখা যায়, কিছুক্ষণ পরপর সমাবেশের ব্যানার লাগানো বাসে করে আসছেন নেতা-কর্মীরা। সকালে যানজট ছিল আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয় পেরিয়ে জিরো পয়েন্ট পর্যন্ত।

মহাসমাবেশ উপলক্ষে সকাল থেকেই নেতা–কর্মীরা খণ্ড খণ্ড মিছিল বের করেন। দুপুরের দিকে সমাবেশস্থলে নেতা–কর্মীদের ঢল নামতে দেখা গেছে।