বিদ্যুৎ ও দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি নিয়ন্ত্রণে আনার দাবিতে আজ ভোলা সদর উপজেলায় বিক্ষোভ সমাবেশ ডেকেছিল বিএনপি। সেখানে পুলিশের সঙ্গে দলটির নেতা-কর্মীদের সংঘর্ষ হয়। এ সময় গুলিতে একজন নিহত হন। সংঘর্ষে আহত হন দুই পক্ষের অর্ধশতাধিক ব্যক্তি।

বিএনপির দাবি, পুলিশ অতর্কিতভাবে তাদের শান্তিপূর্ণ সমাবেশে বাধা দিয়ে গুলি চালিয়েছে। তবে পুলিশের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, সমাবেশের অনুমতি নিয়ে মিছিল বের করায় পুলিশ বাধা দিলে বিএনপির নেতা-কর্মীরা তাদের ওপর চড়াও হন।

কর্মসূচি ঘোষণার সময় মির্জা ফখরুল বলেন, ‘ভোলায় বিক্ষোভে পুলিশ অতর্কিত হামলা ও গুলিবর্ষণ করেছে। এতে সদর উপজেলার দিঘলদী ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবক দলের সদস্যসচিব আবদুল রহিম নিহত হয়েছেন। আরও অনেকে আহত হয়েছেন। এই ফ্যাসিবাদী ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি। এই হত্যাকাণ্ডের প্রতিবাদে আমরা কর্মসূচি ঘোষণা করছি।’

এ ঘটনায় জনসাধারণকে প্রতিবাদ জানানোর আহ্বান জানিয়ে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘বিদ্যুতের লোডশেডিংসহ জনদুর্ভোগের বিষয়ে একটা সমাবেশের ওপর পুলিশ গুলি করে হত্যা করেছে। এটা একটা বড় ধরনের ঘটনা। আমি জনসাধারণকে এ রকম হত্যাকাণ্ডের বিরুদ্ধে সোচ্চার হওয়া, প্রতিবাদ জানানোর আহ্বান জানাচ্ছি।’

এ সময় এক প্রশ্নের জবাবে বিএনপির মহাসচিব বলেন, ‘দেখুন না আজ বিদ্যুতের দাবিতে এ বিক্ষোভ হয়েছে। এটা জনগণের দাবি। এটা সরকারের পরিবর্তনের কোনো আন্দোলন বা কর্মসূচি ছিল না। সেটাকেই তারা সহ্য করতে পারছে না। সেখানে তারা বিনা উসকানিতে গুলি করেছে। আমাদের নেতা-কর্মীদের ওপর হামলা চালিয়েছে, হত্যা করেছে।’

রাজনীতি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন