আলী (রা.) থেকে গেলেন রাসুলের (সা.) সঙ্গে নবুয়ত প্রাপ্তির কাল পর্যন্ত। আলী (রা.) তাঁকে অনুসরণ করলেন, তার ওপর বিশ্বাস স্থাপন করলেন, তার সত্য প্রচার করায় ব্রতী হলেন। আর জাফর থেকে গেলেন আল-আব্বাসের সঙ্গে। পরে তিনি ইসলাম গ্রহণ করে তার কাছ থেকে চলে আসেন।


একজন হাদিস বর্ণনাকারী বলেছেন, নামাজের সময় হলেই রাসুল (সা.) চলে যেতেন মক্কার উপত্যকায়। সঙ্গে যেতেন আলী (রা.)! আলী (রা.) যে যেতেন তা তার বাবা, চাচা কিংবা অন্য কোনো আত্মীয়স্বজন জানতেন না। সেখানে তারা একসঙ্গে নামাজ পড়তেন, ফিরতেন রাতে। এমনি করে চলল আল্লাহরই হুকুমে। একদিন তারা সেখানে নামাজ পড়ছিলেন, এমন সময় আবু তালিব এসে হাজির। তিনি রাসুলকে (সা.) জিজ্ঞেস করলেন, ‘ওটা কী রকম ধর্মকর্ম করছ তোমরা, বৎস?’

রাসুল (সা.) উত্তর দিলেন, ‘এটি আল্লাহর ধর্ম, চাচা, আল্লাহর ধর্ম, তাঁর ফেরেশতার ধর্ম, তাঁর নবীদের ধর্ম, আমাদের বাবা ইবরাহিমের ধর্ম।’
ঠিক এমনি ভাষায় নয় হয়তো। হয়তো তিনি বলেছিলেন, ‘আল্লাহ আমাকে মানুষের নবী করে পাঠিয়েছেন। আপনি আমার চাচা, সবচেয়ে শ্রদ্ধেয়জন, সবচেয়ে যোগ্য মানুষ। সত্যের পথে আনার জন্য, হেদায়ত করার জন্য আপনি সর্বোত্তম ব্যক্তি। আপনি ইচ্ছে করলেই আমার ডাকে সাড়া দিতে পারেন, আমাকে সাহায্য করতে পারেন।'
অথবা এমনি কিছু কথা।


তার চাচা বললেন, ‘আমি আমার পিতা-পিতামহের ধর্ম ত্যাগ করতে পারি না। কিন্তু আমি যত দিন বেঁচে আছি, তত দিন কেউ তোমার কোনো অসুবিধা করতে পারবে না। প্রতিপালকের নামে শপথ করছি আমি।’

অনেকেই বলেন, তিনি নাকি আলীকে (রা.) বলেছিলেন , ‘বাছা ! এটা কী ধর্ম তোমার?’
আলী (রা.) বলেছিলেন, ‘আমি আল্লাহতে বিশ্বাস করি, রাসুলে (সা.) বিশ্বাস করি, আমি বিশ্বাস করি, তিনি যা এনেছেন তা সত্য, আমি তার সঙ্গে আল্লাহর কাছে নামাজ পড়ি, তাঁকে অনুসরণ করি।’
অনেকের মতে, জবাবে তিনি নাকি বলেছিলেন, ‘ভালো ছাড়া অন্য কোনো কিছুতে ও তোমাকে জড়াবে না। সুতরাং, ওর সঙ্গে লেগে থাকো।’


আলীর (রা.) পর যিনি ইসলাম গ্রহণ করেন, তিনি হলেন রাসুলের (সা.) মুক্তি পাওয়া দাস জায়েদ। তারপর মুসলমান হলেন আবু ইবনে আবু কুহাফা। তাঁর অন্য নাম ছিল আতিক। পিতা উসমান ইবনে আমির ইবনে আমর ইবনে কাব ইবনে সাদ ইবনে তায়ম ইবনে মুররা ইবনে কাব ইবনে লুয়ায়ি ইবনে গালিব ইবনে ফিহর। মুসলমান হওয়ার পর তিনি করলেন কি—এর মধ্যে আর রাখঢাক রাখলেন না, প্রকাশ্যে তাঁর বিশ্বাসের কথা ঘোষণা করে বেড়াতে লাগলেন এবং যাকে পান তাকেই আল্লাহ ও তাঁর রাসুলের (সা.) ওপর ইমান আনার জন্য আহ্বান জানাতে লাগলেন। তিনি ছিলেন উচ্চতর অভিজাত সমাজের লোক, বড় সুন্দর ভদ্র ছিল তাদের পরিবারের সবার আচরণ। ছোট-বড় সবাই তাদের পছন্দ করত। কোরাইশদের বংশবৃত্তান্ত আর প্রাচীন ইতিহাস তিনি যেমন জানতেন, অন্য কেউ তেমন জানত না। আবার তাদের দোষ-গুণের সংবাদও ছিল তাঁর নখদর্পণে। যেমন বিরাট বণিক, তেমনি বিরাট ছিল তার হৃদয়, দয়া আর মায়াতে ভর্তি। সুবিধা-অসুবিধা, আপদে-বিপদে সবাই ছুটে আসত তার কাছে পরামর্শের জন্য, কারণ তাঁর যেমন ছিল পর্যাপ্ত জ্ঞান, তেমনি ছিল ব্যবসায়ে বিশাল অভিজ্ঞতা আর সর্বোপরি এমন সুন্দর মিষ্টি মেজাজ। যাদের তিনি বিশ্বাস করতেন, তাঁর কাছে আসত যারা, সবাইকে তিনি আল্লাহর পথে, ইসলামের পথে আসার জন্য আহ্বান জানালেন।

[ইবনে কাতিরের ভাষ্য এরূপ: এর পরদিন এসেছিলেন আলী ইবনে আবু তালিব (রা.)। তখন তারা দুজন নামাজ পড়ছিলেন। আলী (রা.) জিজ্ঞেস করলেন, 'এসব কী, মুহাম্মদ?' রাসুলে করিম (সা.) জবাব দিলেন, 'এটা আল্লাহর ধর্ম। এই ধর্ম তার একান্ত নিজস্ব। এই ধর্ম দিয়েই আল্লাহ নবী প্রেরণ করেন। আমি সেই এক এবং অদ্বিতীয় আল্লাহর পথে আপনাকে আহ্বান করছি। আসুন, তার ইবাদত করুন, আল-লাত আর আল-উজ্জার উপাসনা পরিত্যাগ করুন।’
আলী (রা.) বললেন, 'এমন তাজ্জব কথা আমি জন্মে আর শুনিনি তো কখনো। আমার কেমন যেন ধাঁধা লাগছে। ঠিক আছে আমি আগে একটু আবু তালিবকে জিজ্ঞেস করে নিই।'
কিন্তু আল্লাহর বাণী তিনি নিজে প্রচারে ব্রতী হওয়ার আগে রাসুল (সা.) চান না, এ কথা জানাজানি হোক। সুতরাং তিনি বললেন, ‘আপনি নিজে যদি ইসলাম গ্রহণ না করেন, তাহলে বিষয়টি গোপন রাখবেন।’

সেই রাত অপেক্ষা করলেন আলী (রা.)। তারপর আল্লাহ তাঁর হৃদয়ে গেঁথে দিলেন ইসলামের মর্মবাণী। পরদিন অতি প্রত্যুষে তিনি গেলেন রাসুলের (সা.) কাছে। বললেন, তাঁর প্রতি কী হুকুম রাসুলের (সা.) জানানো হোক।
রাসুলে করিম (সা.) বললেন , ‘সাক্ষ্য দিন যে আল্লাহ ছাড়া আর কোনো উপাস্য নেই। তাঁর কোনো শরিক নেই। আল-লাত আর আল-উজ্জার পূজা বন্ধ করুন। প্রতিদ্বন্দ্বিতা পরিহার করুন।’
তা-ই করলেন আলী (রা.)। মুসলমান হলেন তিনি। তিনি ভয় করতেন আবু তালিবকে। তাই রাসুলের (সা.) কাছে আসাটা বন্ধ করলেন। তিনি ইসলাম গ্রহণ করেছেন এই কথাটিও গোপন রাখলেন, তাঁর নামাজ পড়া কেউ যাতে না দেখে, তাতেও সতর্ক থাকলেন।

মুসলমান হলেন জায়েদ ইবনে হারিসও। দুজনই চুপচাপ রইলেন মাসখানেক। তারপর আলীর (রা.) যাতায়াত শুরু হলো রাসুলের (সা.) কাছে। আল্লাহর এক বিশেষ আশীর্বাদ বর্ষিত ছিল আলীর (রা.) ওপর। ইসলাম প্রচার শুরু হওয়ার আগেই তিনি ছিলেন রাসুলের (সা.) ঘনিষ্ঠতম সহযোগী।


* ইবনে ইসহাক: ইবনে ইসহাকের পুরো নাম আবু আবদুল্লাহ মুহাম্মদ ইবনে ইসহাক বিন ইয়াসার। জন্ম ৭০৪ খ্রিষ্টাব্দে মদিনায়। তাঁর জীবনের সাধনা ছিল মহানবী (সা.)-এর জীবনী এবং তাঁর জীবৎকালে ইসলাম ধর্মের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট যাবতীয় ঘটনার তথ্য সংগ্রহ ও সংকলন। সেই সাধনার ফসল তাঁর লিখিত গ্রন্থ ‘সিরাতে রাসুলুল্লাহ (সা.)’। এই লেখাটি এই গ্রন্থেরই আলফ্রেড গিয়োমের ইংরেজি অনুবাদ থেকে শহীদ আখন্দের অনুবাদকৃত। বাংলায় অনূদিত বইটির প্রকাশক প্রথমা প্রকাশন।

ইসলাম থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন