বিশ্বকাপে ওয়েস্ট ইন্ডিজ হারে স্কটল্যান্ড ও আয়ারল্যান্ডের কাছে। রিভিউ কমিটির এ টুর্নামেন্টে দলের ভরাডুবির পেছনের কারণ হিসেবে নিজেদের পর্যবেক্ষণ জানিয়েছে এভাবে, ‘বিশ্বকাপের ম্যাচগুলো হয়েছে আর্দ্র ও ঠান্ডা হোবার্ট, তাসমানিয়ায়। যেখানকার আবহাওয়ার সঙ্গে ওয়েস্ট ইন্ডিজের চেয়ে বেশি মিল উত্তর ইংল্যান্ডের। দলের প্রস্তুতিতে অস্ট্রেলিয়ায় ক্যাম্প করা হয়নি, সিপিএলও তেমন কোনো প্রভাব রাখতে পারেনি।’

২০২৪ সালে পরের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ হবে যুক্তরাষ্ট্র ও ওয়েস্ট ইন্ডিজেই। কিছু পদক্ষেপ নিলে সেটিতে ভালো করা সম্ভব বলে মনে করে রিভিউ কমিটি। ফ্র্যাঞ্চাইজি লিগ ও জাতীয় দলের খেলার ক্ষেত্রে বোর্ড ও খেলোয়াড়দের একটি মাঝামাঝি অবস্থানে আসতে হবে বলেও মনে করে তারা। এ জন্য দরকার পড়লে দুই পক্ষকেই খোলাখুলি আলোচনার মাধ্যমে যেকোনো অভিযোগ, ক্ষোভ জানানোর পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।

অবশ্য রিভিউ কমিটির মতে, বোর্ড ও খেলোয়াড়দের মধ্যে চরম অনাস্থা তৈরি হয়েছে। সুনীল নারাইন, আন্দ্রে রাসেলদের মতো টি-টোয়েন্টির শীর্ষ পারফর্মাররা ছিলেন না সর্বশেষ বিশ্বকাপে। ফ্লাইট মিস করে না যেতে পারা শিমরন হেটমায়ারকেও বাদ দেওয়া হয়। তবে ফ্র্যাঞ্চাইজি লিগগুলোতে তাঁরা নিয়মিতই খেলেন।

লারাদের রিভিউ কমিটি মনে করে, বোর্ডের যে অনাপত্তিপত্র, সেটি খেলোয়াড়দের বিপক্ষে অস্ত্র হিসেবে ব্যবহার করা উচিত নয়। খেলোয়াড়েরা তাঁদের সর্বোচ্চ আয়ের কথাই ভাববেন। তবে ‘এতে যাতে ওয়েস্ট ইন্ডিজ ক্রিকেটের ক্ষতি না হয়’, সেটিও দেখতে হবে বলে মনে করে ওই কমিটি।

‘অনাপত্তিপত্র খেলোয়াড়দের বিপক্ষে অস্ত্র হিসেবে ব্যবহার করা যাবে না। কিন্তু মাঝামাঝি একটা উপায় বের করাও জরুরি। না হলে ওয়েস্ট ইন্ডিজ ক্রিকেট এর অস্তিত্ব হারিয়ে ফেলতে পারে। এ গ্রুপ (কমিটি) ধ্বংসাত্মক কোনো অনুমান করতে মুখিয়ে নেই, কিন্তু ভবিষ্যতের মেধাকে যারা ঠিকঠাক গুছিয়ে কাজে লাগাতে পারে না, সেটির তেমন টেকসই ভবিষ্যত থাকে না’—যোগ করেছে রিভিউ কমিটি।

ক্রিকেটীয় স্কিল বাড়াতে সীমিত ওভারের সেরা খেলোয়াড়—পুরান, এভিন লুইস, আকিল হোসেন, ওডিন স্মিথ, হেটমায়ার, শেই হোপ, ব্র্যান্ডন কিং, রোভমান পাওয়েলদের টেস্ট ক্রিকেট খেলার সুযোগ করে দিতে বলেছেন লারা, আর্থাররা। তাঁদের মতে, এতে র‍্যাঙ্কিংয়ের ওপরের দিকে থাকা দলগুলোর সঙ্গে খেলে নিজেদের স্কিল উন্নত করতে পারবেন এ ক্রিকেটাররা। ওয়েস্ট ইন্ডিজের জন্য যেকোনো সংস্করণেই ১১-১৩ জন সেরা খেলোয়াড়দের নির্বাচন করতেও উৎসাহ দেওয়া হয়েছে রিভিউ কমিটির পর্যবেক্ষণে।