টুর্নামেন্টের এ পর্যায়ে বাবরদের এভাবে অনিশ্চয়তায় থাকতে হচ্ছে প্রথম দুই ম্যাচে হারের কারণে। নেদারল্যান্ডস ও দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে জেতার আগে ভারত ও জিম্বাবুয়ের কাছে দুই ম্যাচেই শেষ বলে গিয়ে হেরেছিল পাকিস্তান। এর মধ্যে ২৩ অক্টোবর প্রথম ম্যাচে ভারতের কাছে হারার পরই বাবরের সমালোচনা করেছিলেন সাবেকদের অনেকে। পাকিস্তানের সাবেক অধিনায়ক হাফিজ ছিলেন তাঁদের একজন।

পাকিস্তানের এক টিভি চ্যানেলে অংশ নিয়ে বাবরের সমালোচনা করে হাফিজ বলেছিলেন, ‘ব্যাপারটা এখন এমন হয়ে দাঁড়িয়েছে, বাবর আজমের অধিনায়কত্ব নিয়ে সমালোচনা যেন পাপের পর্যায়ে পড়ে। এ নিয়ে টানা তৃতীয় বড় ম্যাচে আমরা তার অধিনায়কত্বে খুঁত দেখলাম। কিন্তু আমরা শুনে আসছি, ৩২ বছর বয়সে আসতে আসতে সে শিখে ফেলবে।’

হাফিজসহ অন্যদের এমন সমালোচনাও যেন বাবরকে জাগিয়ে তুলতে পারছে না! ব্যাট হাতে রান পাচ্ছেন না পাকিস্তান অধিনায়ক। গত আসরে ৩০৩ রান করা বাবর এবার ৪ ম্যাচ খেলে করেছেন মোটে ১৪ রান, একটি ইনিংসও দুই অঙ্ক ছাড়ায়নি। অধিনায়কের ছন্দহীনতার আসরে পাকিস্তান দলও যেন এলোমেলো!

তবে বাংলাদেশের বিপক্ষে গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচের আগে হাফিজ আর সমালোচনা করলেন না বাবরের। আজ পাকিস্তানের সাংবাদিকেরা তাঁকে বাবরের অধিনায়কত্ব ও ব্যাটিং নিয়ে জিজ্ঞেস করলে হাফিজ বলেন, ‘সে আগে কখনো ঘরোয়া ক্রিকেটে অধিনায়কত্ব করেনি। এরপরও তাকে দায়িত্বটি দেওয়ার পর সর্বোচ্চ চেষ্টা করে যাচ্ছে। ওর এখন সমর্থন দরকার, টিম ম্যানেজমেন্টও যাতে দরকারি সহায়তাটুকু করে।’

বাবরকে সমর্থন দেওয়ার কথা বলার পর সমালোচকদেরই সমালোচনা করেছেন এ বছরের শুরুতে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটকে বিদায় জানানো হাফিজ, ‘বাইরে বসে সমালোচনা করা খুব সহজ। বাবর খুবই চমৎকার একজন ক্রিকেটার। যার খেলা দেখতে মানুষ ভালোবাসে। আমি চাই না, ওর অধিনায়কত্ব নিয়ে অযথা সমালোচনা হোক।’