দুবারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন ওয়েস্ট ইন্ডিজকে বিদায় করে বিশ্বকাপের সুপার টুয়েলভ নিশ্চিত করেছে আয়ারল্যান্ড। লড়াইয়ের মূল মঞ্চে শুরুটা অবশ্য ভালো হয়নি তাদের। শ্রীলঙ্কার কাছে হেরেছে ৯ উইকেটের বড় ব্যবধানে।

পরের ম্যাচে বৃষ্টি-ভাগ্যকে পাশে পেয়ে ইংল্যান্ডকে ৫ রানে হারায় আয়ারল্যান্ড। আফগানিস্তানের বিপক্ষে তাদের তৃতীয় ম্যাচটি কাল পরিত্যক্ত হয়েছে বৃষ্টির কারণে। ৩ ম্যাচে ৩ পয়েন্ট নিয়ে তালিকায় আইরিশদের অবস্থান এখন ৩ নম্বরে।

দলটির পরের দুটি ম্যাচ অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে। প্রতিপক্ষ মোটেই সহজ নয়। তবে টুর্নামেন্টের এ পরিস্থিতিতে যেকোনো কিছুই হতে পারে। এ ছাড়া বৃষ্টির সঙ্গে অঘটনের বিষয়ও তো আর উড়িয়ে দেওয়া যায় না! আইরিশদের বিশ্বাস-ছন্দ ধরে রাখতে পারলে আর ভাগ্যের একটু ছোঁয়া পেলে, সেমির স্বপ্নপূরণ হতে পারে তাদের!

আয়ারল্যান্ড অধিনায়ক বলবার্নিও মনে করছেন তাঁদের পক্ষে সেমিফাইনাল খেলা সম্ভব। আফগানিস্তানের বিপক্ষে বৃষ্টিতে ম্যাচ ভেসে যাওয়ার পর এই ব্যাটসম্যান বলেছেন, ‘এটা খেলারই অংশ (ম্যাচ ভেসে যাওয়া)। আপনি হয়তো এই ভেবে অস্ট্রেলিয়ায় এসেছেন যে হুডি আর বর্ষাতি প্রয়োজন নেই। তবে তিন-চার সপ্তাহ আগে আমরা এখানে আসার পর থেকে বিষয়টা একেবারে ভিন্ন। এটা নিয়ন্ত্রণযোগ্য নয়, তাই এ নিয়ে বেশি ভাবার দরকার নেই।’

বৃষ্টিতে কিছু করার না থাকলেও মাঠে সুযোগ পেলে নিজেদের সেরাটা নিংড়ে দিতে চান বলবার্নি। সে সঙ্গে নিজেদের বিশ্বাসের দোলকটা স্থির বলেই জানিয়েছেন তিনি, ‘আমরা বিশ্বাস করি, আমরা পারি। বুধবারের ম্যাচের ফলই আমাদের বিশ্বাসকে সমর্থন দিচ্ছে। নিজেদের সেরাটা না খেলেই আমরা ইংল্যান্ডের মতো দলকে হারিয়েছি, যা খুবই ইতিবাচক ব্যাপার।’ ইংল্যান্ডকে হারানোর পর এখন পরের ম্যাচে অস্ট্রেলিয়াকে হারানোর স্বপ্নও দেখতে শুরু করেছে বলবার্নি।

আত্মবিশ্বাসী আইরিশ অধিনায়ক বলেছেন, ‘আমি সেই দলের অংশ হতে চাই না, যারা মনে করে আমরা (সেমিফাইনালে খেলতে) পারব না। আর বিশ্ব চ্যাম্পিয়নদের নিজেদের ঘরের মাঠে খেলাটা বিশেষ কিছু। কোনো সন্দেহ নেই যে তারা আমাদের হারানোর প্রত্যাশাই করবে। লড়াইয়ের জন্য এটা ভালো ব্যাপার। আমরা অনেক বেশি স্বাধীনতা নিয়ে খেলতে পারব। তবে আমাদের দল অবশ্যই বিশ্বাস করে যে আমরা তাদের হারাতে পারব। আমরা জানি, দিনটিতে আমাদের অনেক ভালো খেলতে হবে। চ্যালেঞ্জটা নেওয়ার জন্য গোটা দল এখন বেশ রোমাঞ্চিত।’

আর নিজেদের ওপর চাপটা কেমন তা জানাতে গিয়ে বলবার্নি বলেছেন, ‘এ পর্যায়ে এসে আমাদের ওপর চাপটা হচ্ছে, যদি আমরা বাজেভাবে হেরে যাই, তাহলে অনেক লোক বলবে, আমরা এখানে খেলার যোগ্য নই। সেটা ভিন্ন একটা চাপ।’