‘গুরুত্বপূর্ণ ঘোষণা’-এই ক্যাপশন দিয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে একটি বিবৃতি দেন শোয়েব। যেখানে তিনি লিখেছন, ‘খুব দুঃখের সঙ্গে সবাইকে জানাতে চাই যে, গত কয়েক মাস চিন্তাভাবনার পর আমি “রাওয়ালপিন্ডি এক্সপ্রেস” চলচ্চিত্র থেকে নিজেকে সরিয়ে নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। আর আমার ম্যানেজমেন্ট এবং আইনি দলের মাধ্যমে এই ছবির পরিচালকের সঙ্গে চুক্তি বাতিল করা হবে। অবশ্যই এটা একটা স্বপ্নের প্রকল্প ছিল এবং আমি এটা রক্ষার অনেক চেষ্টা করেছি। তবে দুর্ভাগ্যজনকভাবে ব্যাপারগুলো ভালোভাবে এগোয়নি।’

চেষ্টা করেও নিজেদের মধ্যকার মতবিরোধ দূর করতে পারেননি জানিয়ে শোয়েব লিখেছেন, ‘মতবিরোধগুলো বন্ধুত্বপূর্ণভাবে সমাধানের চেষ্টা ব্যর্থ হয়েছে এবং প্রতিনিয়ত চুক্তি লঙ্ঘন—শেষ পর্যন্ত সম্পর্ক ছিন্ন করার দিকে চালিত করেছে। ফলে আমি আমার জীবনের গল্প নিয়ে সিনেমা বানানোর অধিকার বাতিল করে, সব স্তরের আইনি প্রটোকল মেনে প্রকল্পটি থেকে সরে এসেছি।’

পাশাপাশি চলচ্চিত্র নির্মাণের কাজ চালিয়ে গেলে আইনি পদক্ষেপ নেবেন বলে মন্তব্য করেছেন শোয়েব, ‘পরিচালক যদি আমার জীবনভিত্তিক চলচ্চিত্র কিংবা আমার নাম ও কোনো ঘটনা ব্যবহার করে ছবিটির নির্মাণকাজ চালিয়ে যান, তবে আইনি ব্যবস্থা নেব।’

পাকিস্তানি চিত্র পরিচালক মোহাম্মদ ফারাজ কায়সার পরিচালিত এই ছবিতে শোয়েবের চরিত্রে অভিনয় করার কথা ছিল পাকিস্তানি অভিনেতা উমাইর জাসওয়ালের। তিনিও এই প্রকল্প থেকে নিজেকে সরিয়ে নেওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন।

এক টুইট বার্তায় জাসওয়াল লিখেছেন, ‘সৃজনশীল ও ব্যক্তিগত কারণে আমি শোয়েব আখতারের বায়োপিক রাওয়ালপিন্ডি এক্সপ্রেস থেকে নিজেকে সরিয়ে নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। এই প্রকল্পের কোনো কিছুর সঙ্গে আমি আর যুক্ত নই। সবার জন্য শুভকামনা।’