এই ইংল্যান্ড দল সাদা বলের সর্বকালের সেরা দলগুলোর ছোট্ট তালিকায় থাকবে। ২০১৫ সালের পর থেকে এ সময়টাকে ইংল্যান্ডের স্বর্ণযুগ বললে ভুল হবে না। এর মধ্যে ইংল্যান্ড একবার টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের ফাইনাল খেলেছে, শিরোপা জিতেছে ওয়ানডে বিশ্বকাপের। এত লম্বা সময় বিশ্ব ক্রিকেটের চূড়ায় থাকলে একটা অহংকারবোধ তৈরি হয়। বাটলারদেরও সেটা আছে।

বাবর-রিজওয়ানদের গল্পটা ভিন্ন। গত কয়েক বছরে তারা টি-টোয়েন্টির ধারাবাহিক দলে পরিণত হয়েছে। তাদের সাফল্যটা এসেছে ছকে বাঁধা ক্রিকেট খেলে। প্রথম ১০ ওভারে ৭০ রান, উইকেট হাতে রেখে শেষে দ্রুত রান তোলার চেষ্টা করা—এটাই পাকিস্তানের ব্যাটিং। একটা মাঠে যে রান করলে জেতা যাবে, সেটাই তারা করে।

আর শাহিন শাহ আফ্রিদির নেতৃত্বে পাকিস্তানের বোলিং এতটাই শক্তিশালী যে তাদের জন্য ওই রানটাই বেশির ভাগ সময় যথেষ্ট মনে হয়। সেদিক থেকে ফাইনালে দুই ধরনের টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটেরও লড়াই হতে যাচ্ছে। কারণ, ইংল্যান্ড ক্রিকেটটা সম্পূর্ণ উল্টো। তারা সফল হয়েছে অল আউট ক্রিকেট খেলে।

দুই দলের ক্রিকেটারদের মধ্যে রিজওয়ানের কথাটা আলাদা করে বলতে চাই। সে এমন একজন ক্রিকেটার, যার খেলার মধ্যে আমি কোনো পরিবর্তন দেখি না। প্রতিদিন, প্রতি ইনিংসে একই রকম খেলে। বেশির ভাগ ব্যাটসম্যানই একেক দিন একেক রকম ব্যাটিং করে থাকে। রিজওয়ান আলাদা। এটা তার সাফল্যের অন্যতম কারণ। একই জিনিস যখন মানুষ বারবার করতে থাকে, তখন তা মুখস্থ হয়ে যায়। রিজওয়ানেরও খেলাটা একদম মুখস্থ।

বাবর কিন্তু সে রকম নয়। সে দলের অধিনায়ক। আলাদা চাপ তার ওপর থাকেই। তবে সেমিফাইনালে ভালো করায় সে চাপটা কিছুটা হলেও সরে যাবে। তবে শিরোপা জয়ের প্রত্যাশার একটা ব্যাপার আছে, যা বাবরের ব্যাটিংয়ে প্রভাব ফেলতেও পারে। রিজওয়ান কিন্তু মাঠে এসব কিছু নিয়ে যায় না। সে একদম শূন্য মস্তিষ্ক নিয়ে প্রতিটি ম্যাচ খেলতে নামে। বিশ্বকাপের ফাইনালে এ ধরনের মানসিকতার ক্রিকেটার ভয়ংকর হয়ে উঠতে পারে।

ইংল্যান্ডের বেন স্টোকসের কথাও এ ক্ষেত্রে চলে আসে। বিশ্বকাপ ফাইনালের অসম্ভব চাপে পারফর্ম করার অভিজ্ঞতা তার আছে। স্টোকসের মতো ক্রিকেটারদের প্রচণ্ড ইচ্ছাশক্তি কাজ করে বড় মঞ্চে পারফর্ম করার। সে ইচ্ছাশক্তিই তাদের সব ইন্দ্রিয়কে জাগিয়ে তোলে। পুরো বিশ্বকাপে চোখে পড়ার মতো কিছু না করলেও বিশ্বকাপ ফাইনালের রাতটা হতে পারে স্টোকসের।

আজ মেলবোর্নে বৃষ্টির শঙ্কার কথা শুনছি। আশা করব, বৃষ্টিবিঘ্নিত ম্যাচ যেন না হয়। পুরো খেলার পর যেন যোগ্য দলই জয়ী হয়।