ভিডিওটি নজরে আসার পর সেটি দেখে ভীষণ ক্ষুব্ধ হন কোহলি। রোববার রাতে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ম্যাচ শেষে হোটেলে ফিরে ইনস্টাগ্রামে একটি পোস্ট দেন তিনি।

টিকটকের সেই ভিডিও যুক্ত করে কোহলি লেখেন, ‘আমি বুঝতে পারছি যে ভক্তরা তাদের প্রিয় খেলোয়াড়দের দেখে খুব খুশি এবং উত্তেজিত হয়। তাদের সঙ্গে দেখা করার জন্য রোমাঞ্চবোধ করে। আমি সব সময় এটির প্রশংসা করি। কিন্তু এখানকার এই ভিডিওটি আমাকে আতঙ্কিত করেছে। আমাকে আমার গোপনীয়তা সম্পর্কে খুব বিভ্রান্তিতে ফেলে দিয়েছে।’

ক্ষুব্ধ কোহলি গোপনীয়তাকে সম্মান করার আহ্বান জানিয়ে লিখেছেন, ‘আমি যদি আমার নিজের হোটেলের কক্ষে গোপনীয়তা না রাখতে পারি, তাহলে আমি কোন জায়গায় নিজের মতো করে থাকার আশা করতে পারি? এই ধরনের অন্ধ অনুরাগ আর চরম গোপনীয়তার লঙ্ঘন আমি কোনোভাবেই সমর্থন করি না। দয়া করে মানুষের গোপনীয়তাকে সম্মান করুন এবং তাদের সঙ্গে বিনোদনের পণ্যের মতো আচরণ করবেন না।’

কোহলির হোটেল কক্ষের ভিডিও ধারণ করায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন তাঁর স্ত্রী ও বলিউড অভিনেত্রী আনুশকা শর্মাও। ইনস্টাগ্রাম পোস্টে তিনি লিখেছেন, ‘অতীতে এ ধরনের অভিজ্ঞতা কয়েকবার হয়েছে। যেখানে ভক্তরা কোনো সহানুভূতি বা করুণা দেখায়নি; তবে এটি সত্যিই বাজে ব্যাপার। একজন মানুষের জন্য চরম অসম্মান ও আর তার গোপনীয়তার লঙ্ঘন। কেউ যদি এটি দেখে মনে করে যে তারকাদের এসব সামলাতেই হবে, তাহলে বলব তিনি নিজেও এই সমস্যার অংশ।’

ইএসপিএনের খবরে বলা হয়েছে, কোহলির কক্ষের ভিডিওটি কারা করেছে, সেটি খুঁজছে ক্রাউন টাওয়ার হোটেল কর্তৃপক্ষ।

তবে ভারতীয় দল টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের আয়োজক আইসিসি বা আয়োজক দেশের ক্রিকেট বোর্ড ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার কাছে কোনো অভিযোগ জানায়নি।