তখন শেষ বলে ফ্রি হিট থেকে জিম্বাবুয়ের দরকার ছিল ৪ রান। এবারও বল–ব্যাটে সংযোগ করতে পারেননি মুজারাবানি। ৩ রানে ম্যাচ জিতে নিয়েছে বাংলাদেশ।
নাজমুল হোসেনের ফিফটি আর তাসকিন আহমেদ, মোস্তাফিজ ও মোসাদ্দেকের ভালো বোলিং ছাপিয়ে ম্যাচ শেষে আলোচনার কেন্দ্রে সেই নো বলের নাটক!

ম্যাচ শেষে পুরস্কার বিতরণীর সঞ্চালক মাইক আথারটন যেমন জিম্বাবুয়ে অধিনায়ক ক্রেগ আরভিন, বাংলাদেশ অধিনায়ক সাকিব আল হাসান ও ম্যাচসেরা তাসিকনের তিনজনকেই প্রশ্ন করেছেন, ‘এমন কাণ্ড আমি কখনো দেখিনি, তুমি কি দেখেছ?’
সাকিব এই প্রশ্নের উত্তরে হাসি দিয়ে বলেছেন, ‘এমন কিছু যেন না হয়, তা নিয়ে আমি ওকে আগেই সতর্ক করেছিলাম।’

সাকিব যে নুরুলকে সতর্ক করেছিলেন, এর কারণও আছে। এর আগের বলেই নুরুল স্টাম্পিং করে ফিরিয়েছেন এনগারাভাকে। সেই বলেও তাঁর গ্লাভস পপিং ক্রিজের প্রায় কাছাকাছি চলে এসেছিল। আম্পায়ার তখনো ‘নো’ বল পরীক্ষা করেছিলেন।

তবে দ্বিতীয়বার এমন ঘটনা ঘটা আর এরপরও বাংলাদেশের জয়—সব মিলিয়ে সাকিব অভিভূত! মুখে হাসির রেখা ফুটিয়ে তিনি বলেন, ‘আমি তো বিশ্বাসই করতে পারছি না!’
এভাবে আবার ফিরে আসার পর পুরো ঘটনা কীভাবে সামলেছেন সাকিব, ইংল্যান্ডের সাবেক অধিনায়ক আথারটনের এমন প্রশ্নের উত্তরে বাংলাদেশ অধিনায়ক বলেন, ‘আমি মোসাদ্দেকের সঙ্গে কথা বলেছি। সে আমাকে বলেছে, “উদ্বেগের কিছু নেই। আমি ঠিক আছি এবং সবকিছু সামলে নেব।” তার কথায় আমি শান্ত হয়েছি, স্বস্তি পেয়েছি।’