পাকিস্তানের দেওয়া ১৬০ রানের লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে নাসিম শাহর বলে বোল্ড হন রাহুল। নেদারল্যান্ডসের বিপক্ষে আগে ব্যাট করতে নেমে পল ফন মিকেরেনের বলে হন এলবিডব্লু। যদিও টিভি রিপ্লেতে দেখা যায়, বল স্টাম্পে লাগত না। মানে, রিভিউ নিলে বেঁচে যেতেন ৩০ বছর বয়সী ব্যাটসম্যান।

এ নিয়েও সমালোচনা কম হচ্ছে না। মজা করে একজন লিখেছেন, ‘কে এল রাহুল জানত সে নটআউট ছিল। রিভিউ না নেওয়া একধরনের ধাপ্পাবাজি। (পাকিস্তানের পর) নেদারল্যান্ডসের বিপক্ষেও রান না করে সে তার বিদ্বেষীদের ট্রল করল। তোমাকে টুপি খোলা সালাম।’

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের মতো বড় আসরে রাহুলের ছন্দহীনতা নিয়ে যখন সমালোচনার ঝড় বইছে, তখন কী ভাবছে ভারতীয় টিম ম্যানেজমেন্ট? আজ পার্থে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে কি সহ-অধিনায়ককে বসিয়ে রাখার মতো কঠিন সিদ্ধান্ত নেবে, নাকি ব্যাটিং অর্ডারে পরিবর্তন এনে তাঁকে নিচে খেলানো হবে?

ম্যাচ–পূর্ব সংবাদ সম্মেলনে কাল সবকিছু খোলাসা করেছেন বিক্রম রাঠোর। ভারতীয় দলের ব্যাটিং কোচ বলেছেন, ‘সত্যি বলতে কি, এ মুহূর্তে সে রকম (রাহুলকে বাদ দেওয়া) পরিকল্পনা নেই। সবে দুই ম্যাচ হয়েছে। কাউকে যাচাই করার জন্য এটা যথেষ্ট নয়। প্রস্তুতি ম্যাচে সে দারুণ ব্যাটিং করেছে।’

রাহুল শিগগিরই ছন্দে ফিরবেন বলেও বিশ্বাস রাঠোরের, ‘সব খেলোয়াড়েরই কিছু স্বকীয়তা আছে। একেকজনের খেলার ধরন একেক রকম। সবাই নিজস্ব নিয়মে ইনিংস লম্বা করার চেষ্টা করে। সে একবার ভালো শুরু পেয়ে গেলে আগ্রাসী হতে সময় নেবে না।’

ভারতীয় দলে অধিনায়ক রোহিত শর্মা ও রাহুল ছাড়া স্বীকৃত ওপেনার নেই। বিভিন্ন সময় পন্ত, বিরাট কোহলি, সূর্যকুমার যাদবরা ইনিংসের গোড়াপত্তন করলেও বিশ্বকাপের মতো বড় টুর্নামেন্টে টিম ম্যানেজমেন্ট পরীক্ষা-নিরীক্ষায় যেতে চায় না বলেও জানিয়েছেন রাঠোর।

তা ছাড়া পন্ত উইকেটরক্ষক হওয়ায়ও বেধেছে বিপত্তি। এ মুহূর্তে দলের প্রথম পছন্দের কিপার দিনেশ কার্তিক। ৩৭ বছর বয়সী কার্তিক আছেন অবিশ্বাস্য ছন্দে। এই সময়ে ঘুরেফিরে যে ‘ইমপ্যাক্ট’ প্রসঙ্গটি উঠে আসছে, সেখানে বেশ সফল তিনি। যদিও সাম্প্রতিক সিরিজগুলোয় কার্তিকের সঙ্গে কিপিং গ্লাভস ভাগাভাগি করেছেন পন্ত। তবে দলের সেরা কম্বিনেশন বাছতে গিয়ে দর্শক হয়ে থাকতে হচ্ছে তাঁকে।

এ ব্যাপারে ব্যাটিং কোচ রাঠোরের যুক্তি, ‘সন্দেহ নেই, ঋষভ (পন্ত) অসাধারণ খেলোয়াড়। জানি, যেকোনো প্রতিপক্ষের বিপক্ষে বিধ্বংসী ব্যাটিং করার সামর্থ্য আছে ওর। কিন্তু দুর্ভাগ্যজনকভাবে আমরা ১১ জনের বেশি খেলাতে পারি না। তবে ওকে আমরা প্রস্তুত থাকতে বলেছি। যেকোনো সময় সুযোগ আসতে পারে।’