সমীকরণটা প্রায় অসম্ভব, বাংলাদেশ জানত সেটি। আরব আমিরাতের বিপক্ষে শুরুটা অবশ্য দুর্দান্তই হয় তাদের। টসে হেরে ফিল্ডিংয়ে নেমে প্রথম ওভারেই জোড়া আঘাত করেন পেসার মারুফা আক্তার। ৪ রানে ২ উইকেট হারানোর পর আরব আমিরাতকে একটু ধাতস্থ করেন লাবণ্য কেনি ও মাহিকা গৌর।

তৃতীয় উইকেটে দুজন মিলে যোগ করেন ৩২ রান। নবম ওভারে এসে সে জুটি ভাঙেন লেগ স্পিনার রাবেয়া খান। এক ওভার পর ইশিতা জেহরা রানআউট হয়ে ফিরলে চাপ আরও বাড়ে আরব আমিরাতের।

পঞ্চম উইকেটে কেনি ও বৈষ্ণব মহেশ যোগ করেন আরও ৩৫ রান, এবার জুটি ভাঙেন স্বর্ণা আক্তার। ৪ রান যোগ করতেই সে সময়ে ৫ উইকেট হারায় আরব আমিরাত। অধিনায়ক দিশা ছাড়া বাকি পাঁচ বোলারই পেয়েছেন উইকেটের দেখা। স্বর্ণা বোলিং শেষ করেন ৪ ওভারে মাত্র ১১ রান দিয়ে ১ উইকেট নিয়ে। পরে ব্যাটিংয়েও ঝড় তোলেন আরেকবার।

আফিয়া প্রত্যাশা ও মিষ্টি সাহার ওপেনিং জুটি আজ বড় হয়নি, দ্বিতীয় ওভারেই ফিরতে হয় মিষ্টিকে। প্রত্যাশা আজও ভালো শুরু করেছিলেন, তবে ৩ চারে ১৫ বলে ১৫ রান করেই থামেন। কোনো রান না করে ফেরেন সুমাইয়া আক্তারও, ২২ রানে তৃতীয় উইকেট হারিয়ে একটু চাপেই পড়ে বাংলাদেশ।

তবে আবারও এগিয়ে আসেন স্বর্ণা। রাবেয়ার সঙ্গে তাঁর চতুর্থ উইকেট জুটিতে মাত্র ২৫ বলেই ওঠে ৪৬ রান। স্বর্ণা ১৯ বলে ৩৮ রান করেন ৪ চার ও ২ ছক্কায়। ইন্ধুজা নন্দকুমারের করা ষষ্ঠ ওভারেই দুটি করে চার ও ছক্কায় স্বর্ণা তোলেন ২০ রান!

নবম ওভারে ৩ বলের মধ্যে ফেরেন স্বর্ণা ও রাবেয়া, তবে ততক্ষণে স্কোর সমান করে ফেলেছে বাংলাদেশ। দশম ওভারের প্রথম বলে চার মেরে জয় নিশ্চিত করেন উন্নতি আক্তার।