বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

স্বীকার করে নেওয়া যাক, রামোস-এমবাপ্পে-আশরাফ হাকিমিরা যেটা খেলছিলেন তার পোশাকি নাম ‘পারচিসি’। যা আসলে ভারতীয় পাচিসির আরেকটি সংস্করণ। যদিও মুঠোফোন অ্যাপে, পারচিসি, পাচিসি বা লুডোর মধ্যে পার্থক্য তো নেই। বোর্ডটা সেই চিরায়ত, নিয়মটা বাল্যকালের শেখা। নিজের দান আসলে ছক্কা ফেল। যত সংখ্যা ওঠে, নিজের গুটিকে সেই কয়েকটি ঘর এগিয়ে নাও। বুদ্ধি আর ভাগ্যকে পুঁজি করে এগিয়ে যাও।

এ খেলায় যে বিশ্ব ফুটবলের মহাতারকারাও মেতেছেন তা জানা গেল পিএসজির সুবাদে। লিগ জয়ের আনন্দে একের পর এক ছবি ও ভিডিও পোস্ট করে যাচ্ছে প্যারিসের ক্লাবটি। এর মধ্যে একটি ভিডিওতে যে ম্যাচ দিয়ে এই শিরোপা এল, তার একটি ভিডিওচিত্র তুলে ধরা হয়েছে। ম্যাচের দিন সকাল থেকে ম্যাচের শেষে আনন্দ উৎসব—সব স্থান পেয়েছে সেখানে। টিম হোটেলে ঘুম থেকে উঠে খেলোয়াড়েরা কীভাবে নাশতা করছেন, কীভাবে সময় কাটাচ্ছেন, কিসের আড্ডা দিচ্ছেন—সব দেখানো হয়েছে।

default-image

এর মধ্যেই একটি দৃশ্য দেখে রিয়াল মাদ্রিদ সমর্থকদের মন খারাপ হয়ে যেতে বাধ্য। কিলিয়ান এমবাপ্পেকে বহুদিন ধরেই চাইছে রিয়াল। তাঁকে এখনো পায়নি দলটি। ওদিকে রিয়ালের অন্যতম সফল অধিনায়ক রামোস চলে গেছেন পিএসজিতে। রামোসের সঙ্গেই পিএসজিতে যোগ দিয়েছেন হাকিমি। এই রাইট ব্যাককে নিজেদের ভবিষ্যৎ ভাবতেন সমর্থকেরা। কিন্তু এমবাপ্পের জন্য তহবিল সংগ্রহের দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনার বলি হয়ে হাকিমি চলে গিয়েছিলেন ইন্টার মিলানে। ইন্টার ঘুরে এখন পিএসজিতে হাকিমি।

পিএসজিতে হাকিমির প্রিয় বন্ধু হয়ে উঠেছেন এমবাপ্পে। দুজনই একই বয়সের হওয়ায় মাঠে ও মাঠের বাইরে দারুণ সখ্য। এ দুজনের সঙ্গে রামোসেরও দারুণ জমেছে। সেদিন ম্যাচের আগে তিনজন তাই একই সঙ্গে সময় কাটিয়েছেন। রামোসের আমন্ত্রণ পেয়ে তিনজনের সময় কাটানোর উপায় সম্পর্কেও ধারণা পাওয়া গেছে। তিনজনে মিলে খেলছেন পারচিসি। সেই পারচিসি বা লুডোতে কে জিতেছে সেটা অবশ্য ভিডিওতে জানায়নি পিএসজি।

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন