default-image

এবারের ব্যালন ডি’অর কে জিততে পারেন, সেটা নিয়ে কালকের আগেও মূল আলোচনাটা হচ্ছিল এ তিনজনকে ঘিরেই। মানে ও সালাহর লিভারপুলকে হারিয়ে চ্যাম্পিয়নস লিগ জেতার মাধ্যমে সে আলোচনায় নিজের পক্ষের মানুষদের গলার জোরটা আরেকটু বাড়িয়ে দিয়েছেন এই ফরাসি ফরোয়ার্ড।

ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের সাবেক ইংলিশ ডিফেন্ডার রিও ফার্ডিনান্ডই যেমন গত রাতের পর একরকম নিশ্চিতই হয়ে গিয়েছেন, ব্যক্তিগত অর্জনের দিক দিয়ে ফুটবলের সবচেয়ে বড় পুরস্কারটা এবার বেনজেমাই পাচ্ছেন। এ নিয়ে আর কোনো তর্কই করা চলে না বলে মত দিয়েছেন ফার্ডিনান্ড, ‘ব্যালন ডি’অর নিয়ে তর্কাতর্কি করার দিন শেষ। এবারের ব্যালন ডি’অর বেনজেমা না জিতলে কেলেঙ্কারি হবে।’

বিটি স্পোর্টসের অনুষ্ঠানে বিশ্লেষক হিসেবে ফার্ডিনান্ডই নন, হাজির ছিলেন লিভারপুলের সাবেক কিংবদন্তি অধিনায়ক স্টিভেন জেরার্ডও। খেলার মাঠে ক্লাব-বৈরিতার কারণে দুজন আজীবন দুই মেরুতে থাকলেও, বেনজেমার প্রশ্নে ফার্ডিনান্ডকে সমর্থন দিয়েছেন জেরার্ড, ‘বাচ্চারা যখন ঘরে বসে খেলা দেখে, ওরা স্ট্রাইকারদের অনুসরণ করার চেষ্টা করে, ওর গোলের জন্য অপেক্ষা করে। তবে আপনি যদি শুধু গোল ছাড়াও বিশ্বমানের অলরাউন্ডার স্ট্রাইকার হিসেবে কারওর নাম বলতে চান, বেনজেমার নাম আসবেই। এবারের ব্যালন ডি’অর ওরই প্রাপ্য।’

default-image

৩৪ বছর বয়সী ফরোয়ার্ড বেনজেমা এবারই ক্যারিয়ারের সেরা মৌসুম কাটিয়েছেন। ২৭ গোল করে লিগের সর্বোচ্চ গোলদাতা হয়েছেন। চ্যাম্পিয়নস লিগে ১৫ গোল করার পথে পিএসজি ও চেলসির বিপক্ষে মহাগুরুত্বপূর্ণ দুই ম্যাচে দুই হ্যাটট্রিক করেছেন। বেনজেমা অবশ্য নিজেই নিজের ঢাক পেটাতে রাজি নন।

ম্যাচ শেষে দলীয় অর্জনটাই বড় হয়ে উঠেছে তাঁর কাছে, ‘ব্যালন ডি’অর? আমি মাত্র মৌসুম শেষ করলাম। আমার কাজটা ঠিকঠাক করেছি। আমার মনে হয় এই ক্লাবের জন্য এই বছর এর চেয়ে ভালো কিছু করতে পারতাম না। আমি যা যা অর্জন করেছি, তা নিয়ে গর্বিত। দেখা যাক ব্যালন ডি’অরের ক্ষেত্রে কী হয়, কারণ, আমি এর মধ্যেই অন্যান্য শিরোপা জিতেছি।’
আগামী অক্টোবরে জানা যাবে, কে জিতছেন ব্যালন ডি’অর।

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন