১৫ শতাংশ ছাড়ের ঘোষণা দেওয়া পোস্টের প্রতিক্রিয়ায় এসেছে বিভিন্ন ধরনের মন্তব্য। একজন লিখেছেন, ‘মহাকাব্যিক–১৫’, অন্য একজন  লিখেছেন, ‘তারা এখন নিজেরাই নিজেদের নিয়ে মজা শুরু করেছে।’

অন্য একজন লিখেছেন, ‘তোমরা স্বাভাবিক নও। তোমরা এটাকে উপভোগও করছ!’ আরেকজন লিখেছেন, ‘ভাই, তোমাদের বিপণনপ্রধান কে বলো তো!’ কেউ কেউ আবার সরাসরি কোনো মন্তব্য না লিখে অট্টহাসির ইমোজি দিয়েছেন।

কিন্তু সবাই তো আর এক নন। অনেকেই ক্লাবকে ঘুরে দাঁড়ানোর ডাকও দিয়েছেন। টুইটারে একজন লিখেছেন, ‘চলো, আবার এখান থেকে শুরু করি। আমরা স্টেডিয়ামে যাব এবং দলকে সমর্থন দেব।’

জুভেন্টাসের আরেক নিষ্ঠাবান সমর্থকের মন্তব্য, ‘আশা করছি গ্যালারিভর্তি দর্শক থাকবে। সব জুভেন্টাস–ভক্ত দলের সঙ্গে থাকবেন।’ আরেক জুভ সমর্থক সিরি ‘আ’কে এক হাত নিয়ে লিখেছেন, ‘সিরি “আ” নিজেই উপহাসের বস্তু। তারা নাপোলিকে চ্যাম্পিয়ন বানানোর প্রকল্প হাতে নিয়েছে।’

এর আগে আর্থিক হিসাব-নিকাশকে কৃত্রিমভাবে সমৃদ্ধ করতে দলবদল নিয়ে মিথ্যাচার করার দায়ে শাস্তির মুখে পড়ে জুভেন্টাস। দলের একাধিক কর্মকর্তাকেও দেওয়া হয়েছে বিভিন্ন মেয়াদে নিষেধাজ্ঞা। জুভেন্টাস অবশ্য শুরু থেকেই এই অভিযোগ অস্বীকার করে আসছে। এমনকি এই শাস্তির বিরুদ্ধে আপিল করার কথাও জানায় তারা।