নারী বিশ্বকাপে চ্যাম্পিয়ন স্পেনের মেয়েদের উদ্‌যাপনছবি: এএফপি

তথ্যটি জানিয়েছে নারীদের খেলাধুলাভিত্তিক যুক্তরাষ্ট্রের সংবাদমাধ্যম ‘জাস্ট উইমেনস স্পোর্টস’—২০১৯ সালে ফ্রান্সে অনুষ্ঠিত নারী বিশ্বকাপের তুলনায় এবার ২৬০ শতাংশ প্রাইজমানি বাড়ানো হয়েছে নারীদের বিশ্বকাপে। চার বছর আগে সেবার প্রাইজমানি ছিল ৩ মিলিয়ন ডলার।

এবার অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ডে অনুষ্ঠিত নারী বিশ্বকাপে ১১ কোটি ডলার প্রাইজমানি ফিফা ঘোষণা করেছিল গত মার্চেই। এটি শুধু পারফরম্যান্স–কেন্দ্রিক প্রাইজমানি। নারী বিশ্বকাপে সব মিলিয়ে ফিফার প্রাইজমানির অঙ্কটা ১৫.২ কোটি ডলার। স্পেন এবার নারীদের বিশ্বকাপ জেতায় স্বাভাবিকভাবেই সবার আগ্রহ থাকবে, এই জয়ে কত টাকা প্রাইজমানি পাবে স্প্যানিশ মেয়েরা?

আরও পড়ুন

বিশ্বকাপের পুরস্কার মঞ্চে খেলোয়াড়কে চুমো দিয়ে বিপাকে স্পেনের ফুটবল-প্রধান

সিডনিতে গতকাল নারী বিশ্বকাপের ফাইনালে ইংল্যান্ডকে ১–০ গোলে হারিয়ে প্রথমবারের মতো এই টুর্নামেন্টে চ্যাম্পিয়ন হয় স্পেন। স্প্যানিশ সংবাদমাধ্যম ‘এএস’ জানিয়েছে, চ্যাম্পিয়নের প্রাইজমানি হিসেবে ৪০ লাখ ডলারের (৪২ লাখ ৯০ হাজার ডলার) বেশি টাকা পাবে স্পেন নারী ফুটবল দল। বাংলাদেশি মুদ্রায় অঙ্কটা প্রায় ৪৬ কোটি ৯২ লাখ টাকা।

রানার্সআপ ইংল্যান্ড পাবে ৩০ লাখ ১৫ হাজার ডলার (বাংলাদেশি মুদ্রায় প্রায় ৩২ কোটি ৯৭ লাখ টাকা)। মোট ১৫.২ কোটি প্রাইজমানির মধ্যে পারফরম্যান্স–কেন্দ্রিক প্রাইজমানি ১১ কোটি ডলার হওয়ায় বাকি প্রায় ৪ কোটি ২৫ লাখ ডলার তহবিল এবং ক্লাবের বিভিন্ন কাজে ব্যয় করবে ফিফা। এবার পারফরম্যান্স–কেন্দ্রিক প্রাইজমানির ৪৪ শতাংশ পাবেন দলের খেলোয়াড়েরা।

গ্রাফিকস: প্রথম আলো

এবার নারী বিশ্বকাপে অংশ নেওয়া ৩২ দলের সবাই এই টুর্নামেন্টের মূল পর্বে খেলার জন্য ১৫ লাখ ৬০ হাজার ডলার করে পাবে। মানে গ্রুপ পর্বে খেলা প্রতিটি দলই এ পরিমাণ অর্থ পাবে। শেষ ষোলোয় ওঠার জন্য প্রাইজমানি ১৮ লাখ ৭০ হাজার ডলার, কোয়ার্টার ফাইনালে ২১ লাখ ৮০ হাজার ডলার, চতুর্থ হওয়া দল ২৪ লাখ ৫৫ হাজার ডলার, তৃতীয় হওয়া দল ২৬ লাখ ১০ হাজার ডলার প্রাইজমানি পাবে।

আরও পড়ুন

ফাইনালে গোল করে স্পেনকে বিশ্বকাপ জেতালেন, ম্যাচের পর জানলেন বাবা মারা গেছেন

নারী বিশ্বকাপে এবার প্রাইজমানি উল্লেখযোগ্য হারে বাড়ানো হলেও ছেলেদের বিশ্বকাপের প্রাইজমানি থেকে তা এখনো বেশ পিছিয়ে। গত গত নভেম্বরে–ডিসেম্বরে কাতারে অনুষ্ঠিত ছেলেদের বিশ্বকাপে মোট প্রাইজমানি ছিল ৪৪ কোটি ডলার। টুর্নামেন্টে অংশ নেওয়া প্রতিটি দলের মধ্যে এই প্রাইজমানি ভাগ করে দেওয়া হয়। চ্যাম্পিয়ন আর্জেন্টিনা শুধু প্রাইজমানি হিসেবেই পেয়েছে ৪ কোটি ২০ লাখ ডলার। আর চ্যাম্পিয়ন আর্জেন্টিনা দলের প্রত্যেকে প্রাইজমানি হিসেবে পেয়েছেন প্রায় ৫ লাখ ৩৮ হাজার ডলার।

যুক্তরাষ্ট্রের সংবাদমাধ্যম ‘দ্য অ্যাথলেটিক’ জানিয়েছে, এবার নারী বিশ্বকাপে চ্যাম্পিয়ন হওয়া স্পেন দলের প্রত্যেক খেলোয়াড় ২ লাখ ৭০ হাজার ডলার (বাংলাদেশি মুদ্রায় প্রায় ২ কোটি ৯৫ লাখ টাকা) করে প্রাইজমানি পাবেন ফিফা থেকে। আর রানার্সআপ ইংল্যান্ড দলের খেলোয়াড়েরা ১ লাখ ৯৫ হাজার ডলার করে পাবেন। তবে ছেলেদের বিশ্বকাপে চ্যাম্পিয়ন হওয়া আর্জেন্টিনা দলের খেলোয়াড়দের কিন্তু ফিফা প্রাইজমানির টাকাটা দেয়নি।

সূত্র মারফত সংবাদমাধ্যম তখন জানিয়েছিল, ফিফার কাছ থেকে পাওয়া প্রাইজমানির ৩০ শতাংশ খেলোয়াড়দের সঙ্গে ভাগ করে নেয় আর্জেন্টিনা ফুটবল অ্যাসোসিয়েশন (এএফএ)। টাকাটা তারই অংশ। ফিফা সভাপতি জিয়ান্নি ইনফান্তিনো অবশ্য এর আগে প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন, ২০২৭ সালের মধ্যে বিশ্বকাপে নারী ও পুরুষদের প্রাইজমানি সমান হয়ে যাবে। ২০২৬ সালে অনুষ্ঠিত হবে ছেলেদের বিশ্বকাপ, পরের বছর মেয়েদের বিশ্বকাপ।

আরও পড়ুন

সেই স্পেনই বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন

‘দ্য অ্যাথলেটিক’ জানিয়েছে, বিশ্বকাপে অংশ নেওয়ার পর খেলোয়াড়দের প্রাইজমানির টাকা দেওয়া হয়নি, এমন নজির কম নেই। ফিফা তাই নিয়ম একটু সংশোধন করেছে। খেলোয়াড়দের ব্যাংক অ্যাকাউন্টে যেন টাকাটা পৌঁছায়, সেটা নিশ্চিত করবে ফুটবলের নিয়ন্ত্রক এই সংস্থা। গত শনিবার ফিফার নারী ফুটবলের প্রধান কর্মকর্তা সারাই বারমান প্রতিশ্রুতি দেন, ‘প্রতিটি ডলার যেন খেলোয়াড়দের ব্যাংক অ্যাকাউন্টে পৌঁছায়, সেটি ব্যক্তিগতভাবে নিশ্চিত করবেন।’