গতকাল দলের সঙ্গে অনুশীলন করতে গিয়ে পায়ের পেশিতে চোট পেয়ে বিশ্বকাপ থেকে ছিটকে গেছেন নিকো গঞ্জালেস। ইতালিয়ান ক্লাব ফিওরেন্তিনার এই ফরোয়ার্ডের জায়গায় ডাক পেয়েছেন কোরেয়া। একেই বোধ হয় বলে কপাল!

আজ সুখবরটা কানে আসতেই তড়িঘড়ি কাতারে রওনা হয়েছেন কোরেয়া। যাওয়ার আগে রোজারিওর ফিশারটন বিমানবন্দরে সাংবাদিকদের জানিয়ে গেছেন তাঁর অনুভূতি, ‘এটা আমার জন্য চমকপ্রদ ব্যাপার। আমার দাদি, বোন, মেয়ে ও বন্ধুবান্ধব একসঙ্গেই ছিলাম। (বিশ্বকাপ দলে সুযোগ পাওয়ার খবর) শোনার পর তাদের সঙ্গে আনন্দ করেছি। অনেকে ফোন করে অভিনন্দন জানিয়েছেন। এখনো আমি ঘোরের মধ্যে আছি। একটা বড়সড় ভ্রমের মধ্য দিয়ে আমি এখন কাতারে যাচ্ছি।’

সতীর্থের চোটে বিশ্বকাপ শুরুর এক দিন আগে এমন সুযোগ আসবে, কল্পনাতেও ভাবেননি কোরেয়া, ‘বিশ্বকাপে অংশ নেওয়া একজন খেলোয়াড়ের সেরা প্রাপ্তি। সবাই প্রবল উদ্দীপনা নিয়ে খেলতে গেছে। এখন আমিও তাদের সঙ্গে খেলতে যাচ্ছি। অথচ কদিন আগেও এটা কল্পনায় আসেনি।’

শুধু গঞ্জালেস নন, আর্জেন্টিনা দল থেকে ছিটকে গেছেন আরেক কোরেয়া। তিনি হোয়াকিন কোরেয়া, ইন্টার মিলানের ফরোয়ার্ড। পরশু রাতে আরব আমিরাতের বিপক্ষে প্রীতি ম্যাচে হাঁটুতে চোট পান তিনি। আর্জেন্টিনার ৫-০ ব্যবধানের জয়ে শেষ গোলটি করেন ২৮ বছর বয়সী ফরোয়ার্ড। হোয়াকিন কোরেয়ার জায়গায় দলে নেওয়া হয়েছে থিয়াগো আলমাদাকে।