ব্রাজিলের বিশ্বকাপ জয় নিয়ে এর আগে ভবিষ্যদ্বাণী করেছিলেন অস্ট্রেলিয়ার সাবেক তারকা ফুটবলার টিম কাহিল। তাঁর মতো ব্রাজিল তারকা কাফুও কাতার বিশ্বকাপ আয়োজনের তদারকিতে গঠিত কমিটি—সুপ্রিম কমিটি ফর ডেলিভারি অ্যান্ড লিগ্যাসির সদস্য।

এই কমিটিতে আছেন ক্যামেরুনের সাবেক তারকা স্যামুয়েল ইতোসহ আরও কয়েকজন সাবেক বিশ্ব তারকা। কাহিল যেখানে বেলজিয়ামকে হারিয়ে ব্রাজিলের বিশ্বকাপ জয়ের ভবিষ্যদ্বাণী করেছিলেন, কাফু সেখানে ফাইনালে ব্রাজিলের প্রতিপক্ষ হিসেবে ফ্রান্সকে দেখছেন। ১৮ ডিসেম্বর লুসাইল স্টেডিয়ামের ফাইনালে ব্রাজিল ও ফ্রান্সকে দেখছেন ‘সেলেসাও’দের কিংবদন্তি এই রাইটব্যাক।

ব্রাজিলের হয়ে দুবার (১৯৯৪, ২০০২) বিশ্বকাপ জিতেছেন কাফু। বিশ্বকাপ জয়ের হ্যাটট্রিক তিনি করতেই পারতেন। কিন্তু ১৯৯৮ সালে ফ্রান্স বিশ্বকাপের ফাইনালে উঠেও যে ব্রাজিল হেরে যায়। সেবার জিনেদিন জিদানের কাছে ভরাডুবি হয়েছিল ব্রাজিলের।

এবার ফ্রান্সকে হারিয়ে বিশ্বকাপ জয়ের ভবিষ্যদ্বাণী করলেন কাফু, সেটিতে কি মিশে আছে ১৯৯৮ সালের হাহাকার? হতেও পারে। কাফু বলেছেন, ‘ব্রাজিল ও ফ্রান্স ফাইনাল হলে সেটি হবে দুর্দান্ত। ব্রাজিল ২০ বছর বিশ্বকাপ জেতে না। এবার যদি ফ্রান্সকে হারিয়ে বিশ্বকাপ জিততে পারে, সেটি হবে দুর্দান্ত।

ব্রাজিল ও ফ্রান্স কীভাবে ফাইনালে উঠতে পারে, সেটির ব্যাখ্যাও দিয়েছেন কাফু, ‘ব্রাজিল, আর্জেন্টিনা, ইংল্যান্ড ও ফ্রান্সের মতো দলগুলো বিশ্বকাপ জেতার ব্যাপারে টপ ফেবারিট। জার্মানি, বেলজিয়াম ও পর্তুগালও দারুণ দল। এই দলগুলোর প্রত্যেকেরই বিশ্বকাপ ফাইনালে খেলার যোগ্যতা ও শক্তিমত্তা আছে।’

কাফু মনে করেন, এবার ব্রাজিল ও আর্জেন্টিনার সেমিফাইনালে মুখোমুখি হওয়ার সম্ভাবনা আছে। অপর সেমিতে খেলবে পর্তুগাল ও ফ্রান্স। ব্রাজিল আর্জেন্টিনাকে সেমিফাইনালে হারিয়ে ফাইনালে উঠবে। ওদিক দিয়ে ফাইনালে উঠবে ফ্রান্স, ‘আর্জেন্টিনা ও ব্রাজিল সেমিফাইনাল ম্যাচ খুব সহজ কিছু নয়। দুটিই বিশ্ব ফুটবলের বড় শক্তি। ফ্রান্স ও পর্তুগাল খেলবে সেমিফাইনালে। আমি মনে করি ব্রাজিল ও ফ্রান্স ফাইনাল খেলবে।’