জিরোনাকে হারাতে না পারলেও অবশ্য বার্সেলোনাকে টপকে লা লিগার শীর্ষে ফিরেছে রিয়াল। ১২ ম্যাচে কার্লো আনচেলত্তির দলের পয়েন্ট ৩২। সমান ম্যাচ খেলে ১ পয়েন্ট কম বার্সার।
গতকাল ভ্যালেন্সিয়ার বিপক্ষে যোগ করা সময়ে রবার্ট লেভানডফস্কির গোলে পয়েন্ট তালিকার শীর্ষে গিয়েছিল বার্সা। সেখান থেকে তাদের নামাতে ২৪ ঘণ্টাও লাগল না রিয়ালের।
তবু কি স্বস্তিতে থাকতে পারছে রিয়াল? উত্তরণ-অবনমনের মধ্যে দিয়ে যাওয়া জিরোনার বিপক্ষে ঘরের মাঠে পয়েন্ট খোয়ানো তো পরাজয়েরই সমান!
লা লিগার শীর্ষস্থান নিয়ে এমনিতেই মৌসুমের শুরু থেকে ইঁদুর-বিড়াল খেলা চলছে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী দল দুটির। সে খেলায় কখনো রিয়াল, কখনো বার্সা এগিয়ে যাচ্ছিল। এ দফায় যেমন এগিয়ে গেল বর্তমান চ্যাম্পিয়নরা। কিন্তু দিন শেষে পূর্ণ পয়েন্ট তুলে নিতে পারার হতাশা থাকছেই।


বার্নাব্যুতে ম্যাচের প্রথমার্ধ গোল বন্ধ্যাত্বে কেটেছে। করিম বেনজেমার চোটে শুরুর একাদশে নামা রদ্রিগোর শট  পোস্টে বাধা পেয়েছে। তবে বিরতির আগে সেরা সুযোগ সৃষ্টি করেছিল অতিথি জিরোনাই। ৩৮ মিনিটে এদুয়ার্দো কামাভিঙ্গাকে ফাঁকি দিয়ে এগিয়ে যান ভালেরি ফার্নান্দেজ। বল বাড়ান ডান দিকে থাকা ইয়ানহেল হেরেরাকে। তাঁর বুলেট গতির শট রিয়াল গোলরক্ষক থিবো কোর্তোয়াকে ফাঁকি দিলেও ক্রসবারকে পারেনি।

বিরতির পর গোলের জন্য হন্যে হয়ে ওঠে রিয়াল। সাফল্য আসে ৭০ মিনিটে। ফেদেরিকো ভালভার্দের ক্রস থেকে পাওয়া বলে জাল কাঁপাতে ভুল করেননি ভিনিসিয়ুস জুনিয়র। এই গোল যেন সর্বশেষ চ্যাম্পিয়নস লিগ ফাইনালের স্মৃতি মনে করিয়ে দিয়েছে। ভিনি-ভালভার্দের যুগলবন্দীতে পাওয়া গোলেই লিভারপুলকে হারিয়ে ১৪তম চ্যাম্পিয়নস লিগ শিরোপা জিতেছিল রিয়াল। তবে এ দফায় আর জেতা হয়নি।

লিগে জিরোনার বিপক্ষে রিয়ালের রেকর্ড আগে থেকেই শঙ্কা জাগাচ্ছিল। এ দিনের আগে তাদের বিপক্ষে খেলা চার ম্যাচের দুটিতেই হেরেছে লস ব্লাঙ্কোরা, যা শতকরা হিসেবে কোনো দলের বিপক্ষে সবচেয়ে বাজে রেকর্ড। সেটা আরও বাজে হয়েছে ৮০ মিনিটে পেনাল্টি থেকে হজম করা গোলে।
স্পট কিক থেকে ঠান্ডা মাথায় কোর্তোয়াকে বোকা বানান ক্রিস্থিয়ান স্তুয়ানি। তাঁর ডান দিকের কোনায় নেওয়া নিচু শটে কোর্তোয়া উল্টো দিকে ঝাঁপিয়ে পড়লে সমতায় ফেরে জিরোনা। যোগ করা সময়ে ক্রুসের সেই লাল কার্ড দেখে মাঠ ছাড়ার ঘটনা শুধু হতাশাই বাড়িয়েছে রিয়ালের।

এদিকে প্রিমিয়ার লিগে আজ রাতে ওয়েস্ট হামের বিপক্ষে মার্কাস রাশফোর্ডের একমাত্র গোলে জিতেছে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড।