৮ নভেম্বর ওসাসুনার বিপক্ষে ম্যাচে দ্বিতীয় হলুদ কার্ড দেখে মাঠ ছাড়েন লেভা। মাঠ ছেড়ে যাওয়ার সময় নাকে হাত দিয়ে একটি ইঙ্গিত করেন, যা রেফারি গিল মানজানোর প্রতি অসম্মানজনক আচরণ হিসেবে দেখা হয়েছে। লাল কার্ড দেখায় এমনিতে এক ম্যাচ নিষিদ্ধ ছিলেন লেভানডফস্কি। ম্যাচ অফিশিয়ালের প্রতি ‘অসম্মানজনক আচরণে’র কারণে পোলিশ তারকাকে আরও দুই ম্যাচ নিষিদ্ধ করার কথা কাল জানিয়েছে রয়্যাল স্প্যানিশ ফুটবল ফেডারেশন (আরএফইএফ)।

লা লিগার এই মৌসুমে সর্বোচ্চ ১৩ গোল করা লেভা এই শাস্তির কারণে বিশ্বকাপের পর এসপানিওল, আতলেতিকো মাদ্রিদ ও হেতাফের বিপক্ষে ম্যাচ তিনটি খেলতে পারবেন না। তবে গত সপ্তাহেই সেই আচরণ নিয়ে নিজের অবস্থান ব্যাখ্যা করেছিলেন লেভা।

‘গোল্ডেন বুট’ পুরস্কার নেওয়ার অনুষ্ঠানে বলেছিলেন, ‘ওই আচরণটা জাভির (বার্সেলোনার কোচ) প্রতি ছিল, রেফারির প্রতি নয়।’ গত মাসে একটি বিষয়ে জাভি ও লেভার মধ্যে কথা হয়েছিল। তারই প্রতিক্রিয়া হিসেবে অমন আচরণ করেছিলেন বলে দাবি করেন ৩৪ বছর বয়সী এই স্ট্রাইকার। তবে নিজের ভুলটাও স্বীকার করেছেন, ‘এটা আমারই ভুল। দুটি হলুদ কার্ড দেখেছি। তবে ওটা জাভির উদ্দেশেই ছিল।’

জেরার্ড পিকে সে ম্যাচে বেঞ্চে বসেও লাল কার্ড দেখেছিলেন। তাঁকে চার ম্যাচ নিষিদ্ধ করা হয়েছে। মজার ব্যাপার, পেশাদার ক্যারিয়ারে সেটাই পিকের শেষ ম্যাচ। বার্সেলোনা তারকা অবসর নেওয়ায় এই শাস্তি আর কার্যকর হবে না। ওসাসুনার বিপক্ষে ম্যাচটি ২-১ গোলে জিতে পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে ওঠে বার্সা।

কাতালান ক্লাবটির ওয়েবসাইটে লেভার শাস্তি নিয়ে বলা হয়েছে, ‘প্রতিযোগিতার কমিটি কর্তৃক রবার্ট লেভানডফস্কিকে তিন ম্যাচ নিষিদ্ধ করার বিরুদ্ধে আপিল কমিটির কাছে আপিল করবে বার্সেলোনা।’

তবে লেভাকে শাস্তি দেওয়ার পর একটি বিষয় নিয়ে বিতর্ক হতে পারে। বিশ্বকাপের বিরতির আগে জিরোনার বিপক্ষে ১-১ গোলে ড্রয়ের ম্যাচে রিয়াল কোচ কার্লো আনচেলত্তি বলেছিলেন, রেফারি এই ম্যাচে ‘পেনাল্টি’ আবিষ্কার করেছেন। তাঁর কথায় স্পষ্ট, অফিশিয়াল যে পেনাল্টি দিয়েছেন, তা উচিত হয়নি। কিন্তু এমন কথা বলার পরও আনচেলত্তির শাস্তি হয়নি। সংবাদ সংস্থা এএফপি জানিয়েছে, এই কথার জন্য আনচেলত্তি চার ম্যাচ নিষিদ্ধও হতে পারতেন।