ফিফা ইংলিশ ফুটবল অ্যাসোসিয়েশনকে (এফএ) ফিফা স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছে, নিয়মানুযায়ী ওই বিশেষ আর্মব্যান্ড পরতে পারবেন না কোনো অধিনায়ক। ফিফা যে আর্মব্যান্ড বানিয়েছে, সেটিতে ঐক্য ও সমতার বার্তা আছে। প্রতি রাউন্ডেই সেই আর্মব্যান্ডের স্লোগান পাল্টে যাবে। কিন্তু এর বাইরে ম্যাচে অন্য কিছু পরে নামা যাবে না। ইরানের বিপক্ষে যদি কেইন অন্য কোনো আর্মব্যান্ড পরেন, তাহলে অবশ্যই ম্যাচের আগে তাঁকে হলুদ কার্ড দেখানো হতে পারে।

ফিফার হুমকিতেই নিজেদের সিদ্ধান্ত থেকে সরে এসেছে ইউরোপীয় দেশগুলো। এক যৌথ বিবৃতিতে দেশগুলো জানিয়েছে, ‘ফিফা এ ব্যাপারে নিজেদের অবস্থান পরিষ্কার করেছে। আমাদের অধিনায়কেরা যদি বিশ্ব ফুটবল সংস্থার নির্ধারিত আর্মব্যান্ডের বাইরে অন্য কোনো আর্মব্যান্ড পরেন, তাহলে তাঁদের ওপর নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হবে। ফিফার আইনেই বলা আছে, তাদের অননুমোদিত সরঞ্জাম নিয়ে যদি কোনো আন্তর্জাতিক ম্যাচে খেলোয়াড়েরা খেলতে নামেন, তাহলে তাঁদের হলুদ কার্ড দেখানো হবে।’

তারা আরও জানিয়েছে, ‘দেশের ফুটবল অ্যাসোসিয়েশন হিসেবে আমরা আমাদের খেলোয়াড়দের নিষেধাজ্ঞা বা কোনো শাস্তির মুখে ঠেলে দিতে পারি না। সুতরাং আমরা আমাদের অধিনায়কদের এ ধরনের কোনো আর্মব্যান্ড না পরারই নির্দেশনা দিয়েছি।’ ইংল্যান্ড ও জার্মানি ছাড়াও এই যৌথ বিবৃতিতে অংশ নিয়েছে নেদারল্যান্ডস, বেলজিয়াম, ডেনমার্ক, ওয়েলস ও সুইজারল্যান্ডের ফুটবল অ্যাসোসিয়েশন।

এদিকে আজ দিনের অন্য ম্যাচে মাঠে নামবে নেদারল্যান্ডস ও সেনেগাল। এই ম্যাচেও ডাচ অধিনায়ক ভার্জিল ফন ডাইক ‘ওয়ান লাভ’ আর্মব্যান্ড পরতে চেয়েছিলেন। কিন্তু হলুদ কার্ডের শাস্তি নিয়ে তিনি নিজের শঙ্কা প্রকাশ করেছেন। তাঁকে এ ব্যাপারে জিজ্ঞেস করা হলে তিনি বলেছেন, ‘আমি এই আর্মব্যান্ড পরতে চাই। কিন্তু এর জন্য যদি আমাকে হলুদ কার্ড দেখানো হয়, তাহলে ব্যাপারটা নিয়ে ভাবব। হলুদ কার্ড দেখে ম্যাচ শুরু করতে মোটেও ভালো লাগবে না আমার।’