চাকরি করতে না হলেই ভালো হতো মনে করছেন?

ইমরানুর: অবশ্যই। শুধুই খেলা নিয়ে থাকলে আমার জন্য ভালো হতো। শারীরিক ও মানসিক বিশ্রাম নিয়ে পরদিন অনুশীলন করতে পারতাম। অনুশীলনের মান এবং পারফরম্যান্সও তাতে ভালো হতো। কিন্তু সেটা এখন হচ্ছে না।

চাকরি ছেড়ে শুধুই খেলা নিয়ে থাকার কোনো পথ কি নেই?

ইমরানুর: আপাতত নেই। খেলার জন্য অন্য কোনো উৎস থেকে আর্থিক সহায়তা না পাওয়া পর্যন্ত চাকরি ছাড়তে পারব না। আসলে শীর্ষ অ্যাথলেটদের আর্থিক সমর্থন থাকে। দেখুন, শ্রীলঙ্কার অ্যাথলেট পাঁচ বছরের বেশি সময় ধরে বৃত্তি নিয়ে ইতালিতে আছে, দেশ থেকে সে সব রকম সহায়তা পায়। চাকরি করে না, শুধু খেলা নিয়েই ভাবে। পাকিস্তানের অ্যাথলেটও দেখলাম চাকরি করে না। এটা ওদের জন্য বিরাট সুবিধা।

default-image

তাহলে এখন কীভাবে অ্যাথলেট হিসেবে সামনে এগোবেন?

ইমরানুর: কিছু করার নেই। আমার পরিস্থিতি পুরো ভিন্ন। আমাকে একটি পূর্ণাঙ্গ ও একটি খণ্ডকালীন চাকরি করতে হচ্ছে। আপনি যখন বেশির ভাগ সময় চাকরিতেই থাকেন, তখন ক্লান্তির কারণে আপনার চোটের শঙ্কা থাকে। তাতে ফলও ভালো হয় না।

বারবার খেলার জন্য যে অফিস থেকে ছুটি নেন, সমস্যা হয় না?

ইমরানুর: আগে হতো না। এখন হচ্ছে। আমার বারবার ছুটি নেওয়ার ব্যাপারটা ওরা ভালোভাবে নিচ্ছে না। এটা নিয়ে ওরা আমার সঙ্গে এরই মধ্যে কথা বলেছে। ওরা কিছুটা রাগান্বিতও। আমি টাকা পাই সেখান থেকে, ঠিকমতো কাজ করতে না পারলে আমাকে অন্য কিছু দেখতে হবে। এই ইঙ্গিত তারা আমাকে দিয়ে দিয়েছে। এখন পরিস্থিতি যা, সামনে খুব একটা ছুটি নিতে পারব বলে মনে হয় না।

default-image

তাহলে তো আপনি বিরাট সমস্যায় আছেন...

ইমরানুর: বিরাট সমস্যা। এটা আসলে বলে বোঝানো যাবে না। আমার লড়াই, সংগ্রাম কেউ দেখে না। সবাই শুধু ফল চায়। কিন্তু এমন পরিস্থিতিতে আন্তর্জাতিক পর্যায়ে ভালো করা কঠিন।

বাংলাদেশের অ্যাথলেটিকসে আপনি নতুন আশা দেখিয়েছেন। বাংলাদেশ অ্যাথলেটিকস ফেডারেশন বা অলিম্পিক অ্যাসোসিয়েশন থেকে আর্থিক সহায়তা পান না?

ইমরানুর: আমাকে তারা ভালো করতে উৎসাহ দেয়। আর্থিক সহায়তা করবে বলেও জানিয়েছে। বাংলাদেশ অলিম্পিক অ্যাসোসিয়েশনের কর্মকর্তারা এখন ইসলামিক গেমসে আছেন বিভিন্ন দায়িত্ব নিয়ে। গেমসটা শেষ হোক। এ নিয়ে এখন তাই কিছু বলব না। তবে আমার পক্ষ থেকে তাঁদের এটা দেখাতে হবে যে আমি ভালো করতে পারি।

সহায়তা করবে, সেটা তো ভবিষ্যতের কথা। এখন আপনার অনুশীলন খরচ কে চালায়?

ইমরানুর: আমি নিজেই। কোচ আছে, তাঁকে সম্মানীও আমাকেই দিতে হয়।

default-image

তুরস্কে ১০.০১ সেকেন্ড সময় নিয়ে আপনি একটু চমকেই দিয়েছেন। আরেকটু হলেই ১০ সেকেন্ডের নিচে যেতে পারেন। সেটা কি সম্ভব বলে মনে করেন?

ইমরানুর: এখনই এতটা ভাবছি না। তবে ১০ সেকেন্ডের নিচে দৌড়ানোর সামর্থ্য আমার আছে। এ জন্য আরও কঠিন পরিশ্রম করতে হবে। তবে কাজটা সহজ নয়। নিখুঁত দৌড়, নির্দিষ্ট দিনে নিজেকে মেলে ধরা আর শারীরিক অবস্থা ঠিক থাকার ওপর তা নির্ভর করে।

১০.০১ সেকেন্ড টাইমিংটা কি আপনার নিজের কাছেও অপ্রত্যাশিত ছিল?

ইমরানুর: অপ্রত্যাশিতই ছিল। এতটা ভাবিনি।

ফাইনালে তো ১০.১৭ হয়েছে...

ইমরানুর: তখন আমি ক্লান্ত ছিলাম। একটু পেটের পীড়াও ছিল। আসলে সব সময় আপনি ভালো টাইমিং ধরে রাখতে পারবেন না। মানসিক অবস্থা ভালো থাকলে এবং শরীর সতেজ থাকলে ধারাবাহিকভাবে ভালো টাইমিং আসবে।

পরবর্তী দক্ষিণ এশিয়ান গেমসে সোনা জয়ের কথা বলেছিলেন। এখন কি আত্মবিশ্বাস বেড়েছে?

ইমরানুর: দেখুন, আমি আমার সেরাটা দিচ্ছি এবং দেব। তাতে পদক এলে সেটা হবে দারুণ ব্যাপার। আমি সব সময় অন্য স্প্রিন্টারদেরও সম্মান করি। দক্ষিণ এশিয়ান গেমসের এখনো দেড়–দুই বছর বাকি। এই সময়ের মধ্যে আমার দরকার কঠিন প্রশিক্ষণ। ইনশা আল্লাহ আশা করি ভালো কিছুই হবে।

সেই ভালো কিছুটা কি শুধু দক্ষিণ এশিয়ান গেমসে পদক জেতাতেই সীমাবদ্ধ?

ইমরানুর: না। শুধু দক্ষিণ এশিয়ান গেমসে নয়, এশিয়ান গেমসেও পদক জিততে চাই। বাংলাদেশের হয়ে খেলা সব সময় আমার জন্য আনন্দের আর গর্বের। সামনে এশিয়ান ও বিশ্ব ইনডোর চ্যাম্পিয়নশিপে খেলব আশা করি।

এশিয়ান গেমস পদক জয়ের কথা বললেন, কিন্তু ওই গেমসে ১০০ মিটার স্প্রিন্টে জেতা অনেক কঠিন।

ইমরানুর: জানি। তবে চেষ্টা করে যাব।

অবসর কি পান? পেলে কী করেন?

ইমরানুর: অবসর পাই না দুটি চাকরি, পরিবার, খেলা...হাতে আর সময় কই।

ইংল্যান্ড মানেই ফুটবল উন্মাদনা। ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগের খেলা দেখেন? আপনার প্রিয় দল কোনটি?

ইমরানুর: ফুটবল দেখি। প্রিয় দল ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড।

আপনার ক্রীড়া আদর্শ কে?

ইমরানুর: মোহাম্মদ আলী।

অন্য খেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন