নিয়ম অনুযায়ী প্রিমিয়ার হকি লিগে সার্ভিসেস সংস্থার সর্বোচ্চ পাঁচজন খেলোয়াড় নিতে পারে কোনো ক্লাব। মোহামেডান অসীমকে নেওয়ার প্রস্তাবও দিয়েছিল। কিন্তু শেষ পর্যন্ত কোটা পূরণ করে ফেলায় তাঁকে আর নিতে পারেনি সাদা–কালোরা। মোহামেডানের কাছ থেকে পারিশ্রমিক নেওয়ায় তখন অন্য দলে যাওয়ার সুযোগ ছিল না অসীমের। বাধ্য হয়ে পুরো লিগেই দর্শক হয়ে বসে থাকেন তিনি।

প্রিমিয়ার লিগে খেলতে না পারায় স্বাভাবিকভাবে পরের সবগুলো আন্তর্জাতিক টুর্নামেন্টে তাঁকে বিবেচনায় রাখেননি বাংলাদেশ হকি ফেডারেশনের নির্বাচকেরা। সে ধারাবাহিকতায় ২০২১ সালের ডিসেম্বরে ঢাকায় অনুষ্ঠিত এশিয়ান চ্যাম্পিয়নস ট্রফির দল থেকে বাদ পড়েন অসীম। এরপর এ বছর মার্চে ইন্দোনেশিয়ায় অনুষ্ঠিত এএইচএফ কাপ (এশিয়ান হকি ফেডারেশন), মে মাসে থাইল্যান্ডে এশিয়ান গেমস বাছাই এবং জুনে ইন্দোনেশিয়ায় অনুষ্ঠিত এশিয়া কাপের দলেও ডাক পাননি।

বারবার জাতীয় দলের দরজা বন্ধ হয়ে যাওয়ায় হতাশায় এক সময় অবসরের চিন্তা মাথায় আসে অসীমের। মাঠের বাইরে থাকতে থাকতে ফিটনেস নিয়ে চিন্তিত হয়ে পড়েন। ফ্র্যাঞ্চাইজি হকি লিগের প্লেয়ার ড্রাফটসে টিকতে হলে বিপ টেস্টে উতরাতে হতো তাঁকে। সেই বিপ টেস্টে উতরে এ প্লাস ক্যাটাগরির খেলোয়াড়ের তালিকাভুক্ত হন অসীম।

লিগ শুরু হলেও প্রথম ম্যাচে তাঁকে খেলানো হবে কি না, তা নিয়ে সংশয় ছিল। শেষ পর্যন্ত ওয়ালটন ঢাকার বিপক্ষে প্রথম ম্যাচে ৮টি পেনাল্টি কর্নার ঠেকিয়ে প্রমাণ করেন যে তিনি ফুরিয়ে যাননি। এর পর থেকে প্রতিটি ম্যাচে খেলেছেন অসীম এবং ভালো নেপুণ্য দেখিয়ে শেষ পর্যন্ত পেলেন লিগের সেরা গোলরক্ষকের পুরস্কার। জাতীয় দলের গোলকিপার বিপ্লব কুজুর, আবু সাইদ, অভিজ্ঞ জাহিদ হোসেনদের সরিয়ে টুর্নামেন্টে সবচেয়ে বেশি চোখ কাড়েন অসীম।

নিজেকে ফিরে পেতে পরিশ্রম করেছেন অনেক। সেটাই বলছিলেন অসীম, ‘ফ্র্যাঞ্চাইজি লিগ শুরুর আগের দিনও জানতাম না খেলতে পারব কি না। নৌবাহিনীর নিয়মিত অনুশীলনের পরও প্রতিদিন সন্ধ্যায় কোয়ার্টারের মাঠে আলাদা এক ঘণ্টা দৌড়াতাম। আমার লক্ষ্য ছিল এই ফ্র্যাঞ্চাইজি লিগে নিজেকে ফিরে পাওয়া।’

গত ২৮ অক্টোবর ফ্র্যাঞ্চাইজি হকি লিগ শুরুর পর থেকে নিজেকে ফিট রাখতে ক্যাম্পে কোনো ভাত খেতেন না অসীম, ‘মন চাইলেও টিম হোটেলে ওঠার পর থেকে ভাত খেতাম না। শুধু সবজি, সালাদসহ অন্য পুষ্টিকর খাবার খেয়েছি। ফিটনেস ধরে রাখার জন্য যা করার সবই করেছি। সেই পুরস্কারও পেয়েছি।’

আগামী বছর পাকিস্তানে হতে পারে এসএ গেমস। আর সেই গেমস দিয়ে বাংলাদেশ জাতীয় দলে আবারও ফিরতে চান অসীম, ‘জাতীয় দলের ট্রায়াল থেকে বাদ পড়ার পর মন খুব খারাপ হয়ে গিয়েছিল। আমি সুযোগের অপেক্ষায় ছিলাম এত দিন। এবারের লিগে যেমন পারফরম্যান্স করেছি, তাতে আমি খুব খুশি। আশা করি, আবারও জাতীয় দলে ফিরতে পারব।’