বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

ব্যক্তিগত তথ্য

ফাইভারের অ্যাকাউন্ট খোলার জন্য ‘পার্সোনাল ইনফো’ বিভাগে নিজের নাম, প্রোফাইল ছবি, নিজের এবং কাজের বিস্তারিত বর্ণনা, ভাষা ও লেভেল নির্বাচন করে কনটিনিউ অপশন নির্বাচন করতে হবে। ভাষা নির্বাচনের সময় অবশ্যই ইংরেজি নির্বাচন করতে হবে। চাইলে ইংরেজির পাশাপাশি বাংলাসহ একাধিক ভাষাও নির্বাচন করা যাবে।

ছবি

পাসপোর্ট আকারের, সাধারণ ভঙ্গি ও বাঁকাভাবে দাঁড়ানো ছবি দেওয়ার বদলে ফ্রন্ট ফেসিং বা সামনে থেকে পুরো চেহারা ভালোভাবে দেখা যাওয়া ছবি দিতে হবে। এ ক্ষেত্রে ক্যামেরার দিকে সুন্দর করে তাকানো হালকা হাসিমুখের ছবি দেওয়ার চেষ্টা করবেন।

জীবনী

ফাইভারে অ্যাকাউন্ট খোলার জন্য জীবনী বিভাগটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কারণ, ক্লায়েন্টরা আপনার প্রোফাইলে প্রবেশ করে আপনার সম্পর্কে কিছু জানতে এই বিভাগে প্রবেশ করবে। আর তাই আপনার ব্যক্তিগত জীবন, কাজ ও অভিজ্ঞতা সম্পর্কে সব তথ্য ভালোভাবে লিখতে হবে। এ জন্য বিভাগটিতে আপনার কাজের দক্ষতা ও অভিজ্ঞতা তুলে ধরার পাশাপাশি ক্লায়েন্টরা কেন আপনাকে কাজ দেবে, তার একটি বিবরণ লিখতে হবে। আপনার করা কাজের উল্লেখ্যযোগ্য তথ্যও যুক্ত করতে পারেন।
জীবনী লেখার পরবর্তী ধাপে প্রফেশনাল ইনফো বিভাগে আপনার পেশা নির্বাচন করতে হবে। আপনি কত বছর এই পেশায় কাজ করছেন, তা জানানোর পাশাপাশি পেশাসংশ্লিষ্ট বিষয়ে আপনার দুই থেকে পাঁচটি দক্ষতা উল্লেখ করতে হবে। এরপর স্কিলস বিভাগে আপনি কোন কোন বিষয়ে দক্ষ, তা উল্লেখ করে দক্ষতার লেভেলও জানাতে হবে।

শিক্ষা বিভাগে আপনার শিক্ষাগত যোগ্যতার বিস্তারিত তথ্য জানাতে হবে। এ জন্য চাইলে শিক্ষাগত যোগ্যতার সনদ জমা দিতে পারেন। এবার কনটিনিউ বাটনে চাপ দিলেই আসবে লিংকড অ্যাকাউন্টস বিভাগ। এখানে আপনি চাইলে আপনার ফেসবুক, টুইটার ইত্যাদি অ্যাকাউন্ট যুক্ত করতে পারবেন। এরপর কনটিনিউ বাটনে চাপ দিলে দেখা যাবে অ্যাকাউন্ট সিকিউরিটি বিভাগ। আপনার ই–মেইলে এবং টেলিফোন নম্বর যাচাই করা থাকায় এখানে আপনাকে আর বাড়তি কোনো তথ্য দিতে হবে না। এবার কনটিনিউ এবং গিগ তৈরির বাটনে ক্লিক করলেই ফাইভারে অ্যাকাউন্ট তৈরির পাশাপাশি গিগ তৈরির পেজ চালু হবে।

লেখক: আপওয়ার্ক টপ রেটেড প্লাস ফ্রিল্যান্সার

পরের পর্ব: ফাইভারে গিগ তৈরির পদ্ধতি

প্রযুক্তি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন