চলতি বছর দুটি বিভাগে জয়ী সম্মাননা দেওয়া হয়। সমাজের বিভিন্ন স্তরে গুরুত্বপূর্ণ অবদানের জন্য সম্মাননা পেয়েছেন বিজিএমইএর সাবেক সভাপতি রুবানা হক, স্ত্রীরোগ ও প্রসূতিবিদ্যা বিশেষজ্ঞ সায়েবা আক্তার, এসবিকে টেক ভেঞ্চারসের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সোনিয়া বশির কবির, নেত্রকোনার জেলা প্রশাসক অঞ্জনা খান মজলিশ, ওরাকল বাংলাদেশের কান্ট্রি ম্যানেজার রুবাবা দৌলা, ই–কমার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের প্রেসিডেন্ট শমী কায়সার, অণুজীববিজ্ঞানী সেঁজুতি সাহা, অভিনেত্রী আজমেরী হক বাঁধন, মেহজাবীন চৌধুরী ও বাংলাদেশ নারী ফুটবল দলের অধিনায়ক এম এস সাবিনা খাতুন।

উদ্যোক্তা হিসেবে দ্যুতি ছড়িয়েছেন, এমন ১০ নারীকেও এই সম্মাননা দেওয়া হয়েছে। নারী উদ্যোক্তারা হলেন ইফাত সোলাইমান, মাহবুবা আক্তার জাহান, মুক্তা আক্তার, জ্যোৎস্না আখতার, সুরাইয়া মোরশেদ, সোহাইব রুমি, সুলতানা পারভিন, তাহিয়া সুলতানা, তাশফিয়া ত্রিনয় ও রাজিয়া সুলতানা।

অনুষ্ঠানে জুনাইদ আহ্‌মেদ বলেন, ‘জয়ীদের অভিনন্দন জানাচ্ছি। যাঁরা আজ জয়ী অ্যাওয়ার্ড পেলেন, তাঁদের শুধু সফলতার দিকটা দেখলেই হবে না। যে কষ্ট ও পরিশ্রম করে তাঁরা এ পর্যায়ে এসেছেন, সেগুলোকেও সামনে আনতে হবে। তাহলে সবাই অনুপ্রেরণা পাবেন।’

প্রতিমন্ত্রী আরও বলেন, ‘এবারের পুরস্কারে আমরা দেশের সব স্তরের সফল নারীদের এক জায়গায় পেয়েছি। আমরা পেয়েছি অভিনয় জগতে যাঁরা সফল, আমরা পেয়েছি সফল একজন বিজ্ঞানীকে, আমরা পেয়েছি ক্রীড়া ক্ষেত্রে, ব্যবসার ক্ষেত্রে সেরা মানুষদের। আজ এখানে উপস্থিত সব নারী উদ্যোক্তার উদ্দেশে একটাই কথা—কেউ ব্যবসা আয়তনে কত বড়, তা নিয়ে পড়ে থাকবেন না। আপনার ব্যবসা যদি আপনার এবং দেশের অর্থনীতিতে ভূমিকা পালন করে, তবেই আপনি সফল। চারটি “প” সব সময় মাথায় রাখবেন—পুঁজি, প্রশিক্ষণ, প্রগতি ও প্রযুক্তি।’

বিশ্বব্যাংকের উই-ফাই প্রজেক্ট লিড হোসনা ফেরদৌস অনুষ্ঠানে বলেন, ‘ব্যবসার ক্ষেত্রে সব সময় আইনি দিক দিয়ে সৎ থাকবেন। ট্রেড লাইসেন্স, ব্যাংক হিসাব বা অন্যান্য প্রয়োজনীয় কাগজপত্র না থাকলে হয়তো ব্যবসা করতে পারবেন। কিন্তু বড় ব্যবসায়ী হতে পারবেন না।’

উই-ফাই প্রজেক্টের সহযোগিতায় অনুষ্ঠিত দুই দিনের আয়োজন নিয়ে উইয়ের সভাপতি নাসিমা আক্তার বলেন, ‘২০১৭ সাল থেকে আজ পর্যন্ত উইয়ের পথচলায় পাশে পেয়েছি অনেক মানুষকে। আমাদের সবচেয়ে বেশি সাপোর্ট দিয়েছেন উইয়ের উদ্যোক্তারা। তাঁদের অনুপ্রেরণা, তাঁদের মহৎ কাজে আজ দেশের সবচেয়ে বড় নারী উদ্যোক্তা কমিউনিটি হয়েছি আমরা।’

গত শুক্রবার রাজধানীতে শুরু হয় উই সামিট ২০২২। আয়োজনের সহযোগী হিসেবে ছিল আইসিটি বিভাগ, কন্ট্রোলার অব সার্টিফাইং অথরিটিজ (সিসিএ), বিকাশ, ব্যাংক এশিয়া ও স্টেডফাস্ট কুরিয়ার। পুরস্কার প্রদান শেষে সাংস্কৃতিক আয়োজনের মাধ্যমে শেষ হয় উই সামিট।