চ্যাটজিপিটি পরিচালনায় দিনে খরচ ৭ লাখ ডলার, আর্থিক ক্ষতির মুখে ওপেনএআই

চ্যাটজিপিটির কারণে বিশাল আর্থিক ক্ষতির মুখোমুখি ওপেনএআইরয়টার্স

গত বছরের নভেম্বরে মাইক্রোসফটের অর্থায়নে মার্কিন প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান ওপেনএআই কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তাচালিত (এআই) চ্যাটবট চ্যাটজিপিটি উন্মুক্ত করে। প্রযুক্তি–দুনিয়ায় হইচই ফেলে দেওয়া চ্যাটজিপিটির কার্যক্রম পরিচালনার জন্য প্রতিদিন খরচ সাত লাখ মার্কিন ডলার হলেও এখন পর্যন্ত উল্লেখযোগ্য পরিমাণ আয় করতে পারেনি ওপেনএআই। আর তাই আগামী বছরের শেষ নাগাদ বিশাল আর্থিক ক্ষতির মুখোমুখি হতে পারে প্রতিষ্ঠানটি। এক প্রতিবেদনে এমন আশঙ্কা প্রকাশ করেছে অ্যানালাইটিকস ইন্ডিয়া ম্যাগাজিন।

উন্মুক্তের পরপরই ব্যাপক সাড়া পাওয়ায় সবচেয়ে দ্রুত বর্ধনশীল অ্যাপের খেতাব পেলেও সাম্প্রতিক মাসগুলোতে চ্যাটজিপিটির ব্যবহার কমেছে। সিমিলার ওয়েবের তথ্যমতে, জুন মাসে চ্যাটজিপিটি ব্যবহারকারীর সংখ্যা ১৭০ কোটি থাকলেও গত মাসের শেষ নাগাদ এ সংখ্যা ১২ শতাংশ কমে হয়েছে ১৫০ কোটি।

আরও পড়ুন

ব্যবহারকারীর সংখ্যা কমে যাওয়ার পেছনে বেশ কিছু কারণ তুলে ধরেছেন সিমিলার ওয়েবের গবেষকেরা। তাঁদের মতে, অনেক প্রতিষ্ঠানই নিজ কর্মীদের চ্যাটজিপিটি ব্যবহারে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে। আবার কিছু প্রতিষ্ঠান নিজেরাই এআই চ্যাটবট উন্মুক্ত করেছে। শুধু তা–ই নয়, অনলাইনে বেশ কিছু ওপেন সোর্সভিত্তিক লার্জ ল্যাঙ্গুয়েজ মডেল রয়েছে, যেগুলো ব্যবহারের জন্য কোনো অর্থ খরচ করতে হয় না। এর ফলে নিজেদের প্রয়োজন অনুযায়ী সেগুলো পরিবর্তন করে ব্যবহার করছেন অনেকে। উদাহরণ হিসেবে মেটার ‘এল লামা টু’ কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা প্রযুক্তির কথা বলা হয়েছে। চ্যাটবটটি বিনা মূল্যে বাণিজ্যিক কাজের জন্য ব্যবহার করা যায়। ফলে অর্থের বিনিময়ে নিবন্ধনের বদলে বিনা মূল্যে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা ব্যবহারের দিকে ঝুঁকছেন ব্যবহারকারীরা। আবার অনেক সময় এসব লার্জ ল্যাঙ্গুয়েজ মডেল চ্যাটজিপিটির তুলনায় ভালো ফলও দিয়ে থাকে।

আরও পড়ুন

প্রতিবেদনে বলা হয়, চ্যাটজিপিটি এখনো লাভজনক হয়নি। বরং চালু হওয়ার পর গত মে মাস পর্যন্ত ৫৪ কোটি ডলার লোকসান দিয়েছে ওপেনএআই। মাইক্রোসফটের ১০ বিলিয়ন ডলার বিনিয়োগের ওপর ভর করে এ মুহূর্তে প্রতিষ্ঠানটি নিজেদের কার্যক্রম পরিচালনা করছে। তবে ওপেনএআই জানিয়েছে, এ বছর তারা ২০ কোটি মার্কিন ডলার আয় করতে পারবে। আগামী বছর আয়ের পরিমাণ এক বিলিয়ন ডলারে পৌঁছাতে পারে বলেও আশা করছে প্রতিষ্ঠানটি।

সূত্র: এনডিটিভি