চিঠিতে পিচাই লেখেন, আমাকে প্রায় ১২ হাজার কর্মী ছাঁটাইয়ের মতো কঠিন একটি সংবাদ সবাইকে জানাতে হয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রে ছাঁটাই হওয়া কর্মীরা ইতিমধ্যে প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে ই–মেইল পেয়েছেন। অন্যান্য দেশের ছাঁটাই হওয়া কর্মীরা স্থানীয় আইন ও প্রথা অনুযায়ী বিষয়টি জানতে পারবেন।

আমরা অসাধারণ মেধাবী কিছু সহকর্মীকে বিদায় জানাতে বাধ্য হয়েছি। তাঁদের অনেকেই প্রতিষ্ঠানের উন্নয়নের জন্য কঠোর পরিশ্রম করেছেন। আমি তাঁদের কাছে গভীরভাবে দুঃখ প্রকাশ করছি। কঠোর পরিশ্রমের জন্য তাঁদের ধন্যবাদ। ছাঁটাইয়ের এ সিদ্ধান্ত গুগলারদের জীবনকে প্রভাবিত করবে, চিঠিতে এমনটাই লিখেছেন পিচাই।

সুন্দর পিচাই আরও লিখেছেন, গত দুই বছরে আমাদের প্রতিষ্ঠান নাটকীয় প্রবৃদ্ধি অর্জন করেছে। ওই প্রবৃদ্ধির সঙ্গে মিল রেখে এবং তা এগিয়ে নিতে আমরা অনেককেই নিয়োগ দিয়েছিলাম। কিন্তু ওই সময়ের চেয়ে এখনকার অর্থনৈতিক বাস্তবতা বেশ ভিন্ন।

চূড়ান্ত লক্ষ্যের যথার্থতা, পণ্য ও সেবার মূল্য এবং কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তায় (এআই) আগাম বিনিয়োগের কারণে গুগল ও অ্যালফাবেটের সামনে আরও উজ্জ্বল ভবিষ্যৎ রয়েছে বলে মনে করছেন সুন্দর পিচাই। চিঠিতে পিচাই আরও লিখেছেন, এখনকার চেয়ে উজ্জ্বল ভবিষ্যতের জন্যই আমাদের কঠিন সিদ্ধান্ত বেছে নিতে হয়েছে।

সুন্দর পিচাই লিখেছেন, আমাদের সামনে যে বিশাল সুযোগ রয়েছে, সে বিষয়ে আমি আত্মবিশ্বাসী। এ জন্য আমরা যে উদ্দেশ্য নিয়ে কাজ চালিয়ে যাচ্ছি, তার সক্ষমতা, আমাদের পণ্য ও সেবাগুলোর যে মান তৈরি করতে পেরেছি, সেটি এবং কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তায় আমাদের আগাম বিনিয়োগের সিদ্ধান্ত প্রশংসা পাওয়ার যোগ্য।

গতকাল শুক্রবার প্রায় ১২ হাজার কর্মী ছাঁটাইয়ের ঘোষণা দেন গুগলের সিইও সুন্দর পিচাই। প্রযুক্তির বাজারে প্রতিদ্বন্দ্বী মাইক্রোসফট করপোরেশনের ১০ হাজার কর্মী ছাঁটাইয়ের ঘোষণার কয়েক দিন পর এ তথ্য জানালেন তিনি। গুগলের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, ছাঁটাইয়ের আওতায় পড়বেন বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তের অ্যালফাবেটের কর্মীরা।